রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

India Economy: কেমন গেল ২০২৩?

Riya Patra | ২৮ ডিসেম্বর ২০২৩ ১২ : ৫২


সুশান্ত কুমার সান্যাল: আর মাত্র তিনটে দিন। শেষ হবে ২০২৩। অর্থনৈতিকভাবে জেরবার সারা বিশ্বে আশা জাগিয়েছে ভারতের অগ্রগতি। জিডিপি–র নিরিখে অবশ্যই অবস্থান বেশ স্পষ্ট। সার্বিকভাবে অগ্রগতিতে মতভেদ থাকলেও এটা অনস্বীকার্য যে, বিশ্বের এই সুবিশাল বাজারের দখল নিতে মরিয়া সব আন্তর্জাতিক সংস্থাই। কোন কোন দিকে অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে আজকের ভারত, বা কোথায় কোথায় থেকে গেল দুর্বলতা, একটু বিশ্লেষণ করে দেখা যাক।
জিডিপি বৃদ্ধি:‌ আইএমএফ–এর অক্টোবরের অনুমান ছিল, ভারতের জিডিপি বৃদ্ধি পাবে ৬ শতাংশের ওপরে। ২০২৩–২৪ এর প্রথম ও দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের হিসেবে জিডিপি বৃদ্ধি পেয়েছে যথাক্রমে ৭.৮০ ও ৭.৬০ শতাংশ হারে। তাই এই বৃদ্ধি প্রকৃত অর্থেই যথেষ্ট আশা জাগাচ্ছে। কারণ, এই মেয়াদে বিশ্বের জিডিপি বাড়বে মাত্র ৩ শতাংশের আশেপাশে।
• শেয়ার বাজার:‌ সাম্প্রতিক রিপোর্ট বলছে, ভারতের নিফটি–৫০ ইনডেক্স ১৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এক নতুন মাত্রায় পৌঁছে গেছে। সিএনবিসি–র রিপোর্ট বলছে, ভারত হংকং–কে ছাড়িয়ে বিশ্বের সপ্তম বড় শেয়ার বাজারে পরিণত হয়েছে, যার ক্যাপিটালাইজেশন ৩.৯৮৯ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার।
• উৎপাদনে অগ্রগতি:‌ বর্তমানে ভারতীয় জিডিপি–তে উৎপাদন শিল্পের অবদান ১৭ শতাংশের আশেপাশে। বিশেষজ্ঞদের মতে, আগামী ৬ বছরের মধ্যেই তা অনায়াসে ২১ শতাংশে পৌঁছে যাবে। রিপোর্ট বলছে, প্রধান প্রধান পরিকাঠামোর বৃদ্ধি ২০২৩–এর অক্টোবর মাসে ১২.১০ শতাংশে পৌঁছে গেছে, যা গত বছরের অক্টোবরে ছিল মাত্র ০.৭০ শতাংশ। পরিকাঠামোগত প্রস্তাবিত খরচ কিন্তু নজর কেড়েছিল ২০২৩–২৪ এর ইউনিয়ন বাজেটে।
• চীন ফ্যাক্টর:‌ চীনের থেকে সাম্প্রতিক সময়ে চোখ ফেরাচ্ছে অনেক আন্তর্জাতিক সংস্থা। নতুন গন্তব্যের ঠিকানার মধ্যে রয়েছে ভারতও। অ্যাপল থেকে টেসলা, দৌড়টা কিন্তু ছোট নয়। তাই বৈদেশিক বিনিয়োগও বাড়ছে বা বাড়ার সম্ভবনা তৈরি হচ্ছে।
• পিএলআই স্কিমের সফলতা:‌ সরকারের বিভিন্ন প্রোডাকশন লিঙ্কড ইনসেন্টিভ স্কিমের সফলতাও অনেকাংশেই চোখে পড়ছে।
• স্পেস অর্থনীতিতে সাফল্য:‌ ২০২৩ সালে ভারতের চন্দ্রযান–৩ এর অভাবনীয় সাফল্য খুলে দিয়েছে স্পেস অর্থনীতির নতুন ক্ষেত্র। ভারপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর কথায়, ভারতের স্পেস অর্থনীতি ২০৪০–এর মধ্যেই ছুঁয়ে ফেলবে ৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আন্তর্জাতিক কিছু সংস্থার মতে, এই অঙ্কটা ২০৪০ সালের মধ্যে ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেও পৌঁছে যেতে পারে। প্রচুর আন্তর্জাতিক সংস্থা ইতিমধ্যেই এব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে। তাই আগামীতে এর অগ্রগতি নিশ্চিত।
• ব্যবসা সরলীকরণ:‌ ব্যবসায়ের জটিলতা দূর করে আরও উৎসাহদানে সরকার বদ্ধপরিকর। এব্যাপারে ২০২৩–২৪ কেন্দ্রীয় বাজেটে প্রায় ৩৯ হাজার কমপ্লায়েন্স কমানো হয়েছে, আর প্রায় সাড়ে ৩ হাজার ক্ষেত্রে কমানো হয়েছে আইনের জটিলতা। জোর দেওয়া হয়েছে ‘‌মেক ইন ইন্ডিয়া’‌–তেও। সাফল্যও আসতে শুরু করেছে।
কিন্তু সাফল্যের আলোয় ঢাকা পড়া কতকগুলো দুর্বলতাও চিন্তা বাড়াচ্ছে ক্রমান্বয়ে। সেগুলোর দিকেও নজর ফেরানো যাক একবার।
• ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব:‌ বিশেষজ্ঞদের মতে, ভারতের জিডিপি–র উত্থান আশাপ্রদ হলেও চিন্তা বাড়াচ্ছে ভারতে বেকারত্ব বৃদ্ধি যা প্রকৃত অর্থেই ভারতের উন্নতির সবচেয়ে বড় বাধা। বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দেশের দিনে দিনে এই বেকারত্ব বৃদ্ধি কিন্তু যথেষ্টই উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে, বিশেষত শিক্ষিত বা উচ্চশিক্ষিত বেকারের ক্রমবর্ধমান সমস্যা।
• দুর্বল গ্রামীণ অর্থনীতি:‌ এই মুহূর্তে বিশ্বের সবচেয়ে বড় আতঙ্ক গ্লোবাল ওয়ার্মিং। আবহাওয়ার পরিবর্তন বদলে দিছে কৃষির ভাগ্য। ভারত বাস্তবে এখনও কৃষিপ্রধান দেশ। তাই আবহাওয়ার চরিত্র পরিবর্তন ইতিমধ্যেই আঘাত হেনেছে ভারতের কৃষি উৎপাদনে, যার সরাসরি প্রভাব পড়ছে গ্রামীণ অর্থনীতিতে। গ্রামাঞ্চলে কমেছে ভোগ্যপণ্যের চাহিদা, ফলে কমছে উৎপাদন। ফলে একদিকে যেমন এফএমসিজি কোম্পানিগুলোর উৎপাদন কমছে, অন্যদিকে বাড়ছে গ্রামীণ বেকারত্ব। তাই শহরাঞ্চলে বেকারত্বের হার কমলেও গ্রামীণ বেকারত্বের হার দিনে দিনে বাড়ছে ভারতে। এখনই সজাগ না হলে বিপদ বাড়বে।
• তামাদি ঋণ ও মুছে যাওয়া ঋণ পুনরুদ্ধার:‌ বিশেষজ্ঞদের মতে ভারতের অনাদায়ী ব্যাঙ্ক ঋণ বেশ চিন্তার বিষয়। ২০১৪–১৫ থেকে ২০২৩–এর মার্চ পর্যন্ত মুছে যাওয়া ঋণের পরিমাণ হল ১৪.৫৬ লক্ষ কোটি টাকা!‌ এর থেকেও চিন্তার বিষয় হল, বই থেকে মুছে যাওয়া ঋণ আদায় একেবারেই আশাপ্রদ নয় লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী। ফলে দেশের ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থার দুর্বলতার আশঙ্কাও থেকে যাচ্ছে।
• মুদ্রাস্ফীতি:‌ কাগজে–কলমে মুদ্রাস্ফীতির হার কমলেও বাস্তবিকই খাদ্যদ্রব্যের মুদ্রাস্ফীতি বেশ ভাবাচ্ছে। ভূ–রাজনৈতিক সমীকরণ ও যুদ্ধের ফলে বিশ্বে মুদ্রাস্ফীতি এখন বড় চিন্তার বিষয়। তাই দেশের শীর্ষব্যাঙ্ক তৃতীয় ত্রৈমাসিকেও একই রেখেছে রেপো রেট। মুদ্রাস্ফীতিকে আয়ত্তে আনাও একটা বড় চ্যালেঞ্জ ভারতের সামনে।
• ডলারের মূল্যবৃদ্ধি:‌ দেশের আরও একটা বড় চ্যালেঞ্জ হল গত কয়েক বছরে ডলারের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, যার ফলে বাড়ছে আমদানির খরচ। বিশেষত চিন্তা বাড়াচ্ছে খনিজ তেলের মূল্য। মুদ্রাস্ফীতির আশঙ্কা ফের বাড়ছে। বাড়ছে বৈদেশিক বাণিজ্যে ব্যবধানের আশঙ্কাও।


 •মোটোভোল্ট শোবি গাঁটছড়া
 
দেশে ব্যাটারিচালিত বা বৈদ্যুতিক বাইক বাড়ছে। হিসেব বলছে, গত অর্থবর্ষেই দেশে ১৫.‌৬ মিলিয়ন ইউনিট টু–হুইলার বিক্রি হয়েছে। টু–হুইলার ব্যাটারির ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণে জার্মানির ক্লাইমাটেক ফার্ম শোবি–র সঙ্গে হাত মেলাল মোটোভোল্ট মবিলিটি লিমিটেড। এই উদ্যোগের লক্ষ্য, আগামী দুই বছরের মধ্যে দেশ জুড়ে ২০০টি ব্যাটারি সোয়াপিং স্টেশন গড়ে তোলা। চুক্তিস্বাক্ষর করেন মোটোভোল্টের প্রতিষ্ঠাতা তথা সিইও তুষার চৌধরি 

অ্যাকজো নোবেলের নতুন ডিরেক্টর

ডিউলাক্স পেন্টস–এর নির্মাণকারী সংস্থা অ্যাকজো নোবেল তার সাউথ এশিয়া ডেকোরেটিভ পেন্টস ডিভিশনের হেড হিসেবে রাজীব রাজগোপাল–কে নিয়োগ করল। এর পাশাপাশি তিনি অ্যাকজো নোবেল ইন্ডিয়া লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসেবেও দায়িত্বভার সামলাবেন। রাজীব রাজগোপাল ২০১৩ সালে অ্যাকজো নোবেলে ডেকোরেটিভ পেন্টসের সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং হেড হিসেবে যোগ দেন। ভারতে এই সংস্থার ডেকোরেটিভ পেন্টস ডিভিশনের সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং ডিরেক্টর নিযুক্ত হয়েছেন 

ডেলহিভারির ট্রাকিং টার্মিনাল
গুরুগ্রামের ভিওয়ান্ডিতে বিশাল ট্রাকিং টার্মিনাল চালু করল লজিস্টিক্স পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থা ডেলহিভারি লিমিটেড। প্রায় ১২ লক্ষ বর্গফুট এলাকা জুড়ে দেশের অন্যতম বৃহৎ এই ভিওয়ান্ডি মেগা গেটওয়ে ১৬০০–রও বেশি গাড়ি ও দৈনিক ৮ হাজার টনেরও বেশি পণ্যসামগ্রী পরিচালনা করতে পারবে। ডেলহিভারির এমডি তথা সিইও সাহিল বরুয়া জানিয়েছেন, ‘‌নতুন এই টার্মিনালে আমরা প্রতি ঘণ্টায় ৩২ হাজার শিপমেন্ট ও ১৭ হাজার ফ্রেট প্রক্রিয়াকরণে সক্ষম হব।’

জিএসআই–এর কর্মশালা
স্বার্থধারকদের সুবিধার্থে সম্প্রতি হায়দরাবাদে পাম্পড স্টোরেজ হাইড্রো পাওয়ার প্রোজেক্ট (‌পিএসপি)‌–এর ডিপিআর নিয়ে একটি কর্মশালা যৌথভাবে আয়োজন করল জিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া (‌জিএসআই)‌ এবং ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ রক মেকানিক্স (‌এনআইআরএম)‌। অনুষ্ঠানের অংশীদার ছিল গ্রিনকো। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় খনিমন্ত্রী ভি এল কণ্ঠরাও। বক্তব্য পেশ করেন জিএসআই–এর ডিজি জনার্দন প্রসাদ, সেন্ট্রাল ওয়াটার কমিশন, এনআইআরএম ও গ্রিনকোর উচ্চপদস্থ আধিকারিকেরা।

অসমে কর সংগ্রহের দায়িত্বে বন্ধন
অসম সরকারের তরফে
ই–জিআরএএস (‌গভর্নমেন্ট রিসিট অ্যাকাউন্টিং সিস্টেম)‌ পোর্টাল থেকে রাজস্ব সংগ্রহের অনুমতি পেল বন্ধন ব্যাঙ্ক। এর ফলে অসমের জনগণ সরকারের ই–জিআরএএস পোর্টালের মাধ্যমে বাড়ির কর, যানবাহন কর, জলের বিল, অসম সরকার আয়োজিত পরীক্ষার ফি, ট্রেড লাইসেন্স পুনর্নবীকরণ ইত্যাদির মতো ট্যাক্স ও নন–ট্যাক্স অর্থাঙ্ক আদায় দিতে পারবেন। বন্ধন ব্যাঙ্ক খুব শিগগিরই অসম সরকারের কর সংগ্রহ বিষয়ের অন্তর্ভুক্ত হয়ে এই প্রক্রিয়ার সূচনা করবে।
এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে, অসমের ৩৫টি জেলার প্রতিটিতেই বন্ধন ব্যাঙ্কের মোট ৫০০টি আউটলেট রয়েছে।
বন্ধন ব্যাঙ্কের হেড–গভর্নমেন্ট বিজনেস দেবরাজ সাহা জানান, ‘‌অসম সরকারের থেকে দায়িত্ব পাওয়া আসলে বন্ধন ব্যাঙ্কের ওপর বিভিন্ন সরকারের আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতীক। এই দায়িত্বের মাধ্যমে আমরা অসমের জনগণের সেবা করার আরও একটা সুযোগ পেয়েছি।’‌

ওয়েস্ট বেঙ্গল ফুড প্রসেসিং কনক্লেভ
সম্প্রতি কলকাতায় ইন্ডিয়ান চেম্বার অফ কমার্সের উদ্যোগে আয়োজিত হল ‘‌ওয়েস্ট বেঙ্গল ফুড প্রসেসিং কনক্লেভ’‌। এর মূল উদ্দেশ্য ছিল রাজ্যের কৃষিক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত উন্নয়ন ও নানা ধরনের আর্থিক প্রকল্পগুলির বিষয়ে সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়া।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্প ও হর্টিকালচার মন্ত্রী অরূপ রায়, রাজ্যের খাদ্যসুরক্ষা, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দপ্তরের সচিব ও কমিশনার তপনকান্তি রুদ্র, রাজ্যের খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্প দপ্তরের ডিরেক্টর কস্তুরী সেনগুপ্ত, ইন্ডিয়ান চেম্বার অফ কমার্সের সদস্য তথা এলম্যাক ফুডসের মালিক শৌর্যবীর হিম্মতসিংকা, হেরাল্ড ফুড অ্যান্ড কমোডিটিজ প্রাইভেট লিমিটেডের এমডি ডি বন্দ্যোপাধ্যায়, ইন্ডিয়ান চেম্বার অফ কমার্সের সিনিয়র ডিরেক্টর মধুপর্ণা ভৌমিক প্রমুখ।

এয়ারটেল ইনটেলিস্মার্ট গাঁটছড়া
অ্যাডভান্সড মিটারিং ইনফ্রাস্ট্রাকচার (‌এএমআই)‌ ইনিশিয়েটিভের অংশ হিসেবে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে দেশের ২৫০ মিলিয়ন কনভেনশনাল মিটারের জায়গায় স্মার্ট মিটার বসানোর লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে ভারত সরকার। সেই উদ্যোগের অংশ হিসেবে এন্ড–টু–এন্ড আইওটি সলিউশন দেওয়ার লক্ষ্যে ২০ মিলিয়ন স্মার্ট মিটার চালু করার উদ্দেশ্যে ইনটেলিস্মার্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচার প্রাইভেট লিমিটেডের সঙ্গে হাত মেলাল ভারতীয় এয়ারটেল। এয়ারটেল বিজনেস ‌ইন্ডিয়ার সিইও গণেশ লক্ষ্মীনারায়ণ এবং ইনটেলিস্মার্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচারের পক্ষে এমডি তথা সিইও অনিল রাওয়াল এক অনুষ্ঠানে এই খবর জানান।

জম্মু ও কাশ্মীরে শিল্পের সুযোগ
ক্যালকাটা চেম্বার অফ কমার্স জম্মু ও কাশ্মীর কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের লেফটেন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহা ও শিল্প–বাণিজ্য বিভাগের আইপিএস কমিশনার তথা সচিব বিক্রমজিৎ সিং–এর উপস্থিতিতে জম্মু ও কাশ্মীরে শিল্পের সুযোগ নিয়ে বিশেষ আলোচনাসভা আয়োজন করে। 
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ক্যালকাটা চেম্বার অফ কমার্সের প্রাক্তন সভাপতি সুশীল আগরওয়াল ও সভাপতি এইচ এস হালওয়াসিয়া।

বাতিল গাড়ি অপসারণে এমজাংশন

রেজিস্টার্ড ভেহিকল স্ক্র্যাপিং ফেসিলিটি (‌আরভিএসএফ)‌–র সুবিধার্থে বাতিল গাড়ি (‌এন্ড অফ লাইফ ফেহিকল বা ইএলভি)‌ বিক্রির ব্যবস্থা করবে এমজাংশন। সম্প্রতি ভুবনেশ্বরে টাটা মোটরসের ফ্র‌্যাঞ্চাইজি এমপ্রিও প্রিমিয়ামের ইএলভি স্ক্র্যাপ নিজেদের ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে বিক্রি করেছে এমজাংশন। এমজাংশন সার্ভিসেস লিমিটেডের এমডি তথা সিইও বিনয় ভার্মা জানান, ‘‌সবচেয়ে সুবিধাজনক উপায়ে লাইসেন্সপ্রাপ্ত ভেহিকল স্ক্র্যাপিং ইউনিট বিক্রির মাধ্যমে সেরা মূল্যপ্রাপ্তি নিশ্চিত করছে আমাদের প্ল্যাটফর্ম।’‌




বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর



রবিবার অনলাইন

সোশ্যাল মিডিয়া