বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

Lifestyle: ছাতার ফ্যাশন–সফর! প্রয়োজন, স্বাচ্ছন্দ্য পেরিয়ে ছাতা এখন ফ্যাশনে

নিজস্ব সংবাদদাতা | ২৯ মার্চ ২০২৪ ১৬ : ৪১


পরমা দাশগুপ্ত: ক্যালেন্ডার বলছে বসন্ত। এদিকে এই কাঠফাটা রোদ্দুর, এই ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি! অগত্যা ছাতাই মুশকিল আসান। ভরা গ্রীষ্ম কিংবা বর্ষা, ছাতায় ভর করেই দিন কাটে। কবে যেন সাজেরও অঙ্গ হয়ে উঠল একেবারে প্রয়োজনের এই সরঞ্জাম। 
গ্রীষ্মের ছাতা- মূলত রোদ আটকাতেই এর ব্যবহার। তাই হাল্কা ফ্যাব্রিকে, সাধারণত গাঢ় রঙের এই ছাতা ঘোরে বেশির ভাগের হাতে। 
বর্ষার ছাতা- বৃষ্টি থেকে মাথা বাঁচানোই লক্ষ্য। তাই রং বা আকার যা-ই হোক, ওয়াটারপ্রুফ ফ্যাব্রিকের ছাতাই হবে মুশকিল আসান। 
বেড়ানোর ছাতা- আকার যেমনই হোক, ভাঁজ করে, গুটিয়ে ছোট্ট হয়ে ঢুকে পড়তে পারে ব্যাগ কিংবা পকেটে। তাতেই কেল্লাফতে!
রাতের ছাতা- বৃষ্টির রাতেও বাইরে বেরোতে হয়। সে কথা মাথায় রেখে ছাতায় রিফ্লেকটিভ ফ্যাব্রিকেরও ব্যবহার দেখা যাচ্ছে ইদানীং। অন্ধকারে তাতে আলো পড়লে চকচক করে। ফলে গাড়িচালকদের পক্ষে পথচারীদের খেয়াল করাও সহজ হয়। এছাড়াও এক ধরনের ছাতা মিলছে যার স্টিক বা হ্যান্ডেলে আলো লাগানো রয়েছে। ফলে অন্ধকারে পথ চলতে বাড়তি সুবিধে। 
স্মার্ট ছাতা- ছাতা হারান, এমন মানুষের সংখ্যা কম নয়! তাঁদের কথা মাথায় রেখেই প্রযুক্তি এসেছে ছাতাতেও। ছাতায় থাকছে জিপিআরএস এবং ব্লু-টুথ। আপনার মোবাইলের সঙ্গে কানেক্ট করে রাখলেই পেয়ে যাবেন হারানিধি। শুধু তাই নয়, কিছু স্মার্ট ছাতায় থাকছে আবহাওয়ার খোঁজও। কাছেপিঠে বৃষ্টির পূর্বাভাস দেবে ছাতাই! 
কেমন ছাতা এখন ট্রেন্ডিং?
ওভারসাইজড ছাতা- আকারে বিশাল। একজন নয়, দু’জন কিংবা খুদে-সহ আড়াইজনও কিন্তু দিব্যি এঁটে যেতে পারেন তার নীচে।
জ্যামিতিক ছাতা- ইদানীং নানা রকম জ্যামিতিক আকারে ছাতায় মন মজেছে মানুষের। চৌকো, হেক্সাগন, অক্টাগন, ডোম-শেপড, সবই রয়েছে সেই তালিকায়।
ট্রান্সপারেন্ট ছাতা- স্বচ্ছ পলিথিন জাতীয় উপকরণে তৈরি। ছাতা মাথায় দিয়েও আকাশ ঢাকা পড়ে না। সাজেও আসে ‘কুল’ লুক!
ফ্রিল দেওয়া ছাতা- ফ্যাশনে ফিরছে ভিক্টোরীয় যুগের ফ্রিল দেওয়া ছাতা। নানা রঙের এই ছাতাগুলো সাজে এক আলাদা মাত্রা আনতেই পারে। 
গথিক ছাতা- গথিক স্টাইলের এই ছাতাগুলোয় ধারের গোল গোল কাটা অংশগুলো বেশ ডিফাইনড, চোখে পড়ার মতোই। সব মিলিয়ে আপনার ব্যক্তিত্বেও আসবে অন্য রকম মেজাজ।
প্রিন্ট ও প্যাটার্ন- একরঙার বাইরে আগে ছাতার রাজপাটে ছিল মূলত ববি প্রিন্ট, পোলকা ডটস, স্ট্রাইপ বা ফ্লোরাল প্রিন্ট। ইদানীং তাতেই ভাগ বসিয়েছে অন্য স্বাদের নকশা। চড়া রঙে বোল্ড প্রিন্ট, জ্যামিতিক নকশা, নিউজপেপার প্রিন্ট বা অ্যানিম্যাল প্রিন্ট- সবই রয়েছে তালিকায়।
কিমোনো ছাতা- জাপানি ছাতায় কিমোনোর মতো প্রিন্ট। তাতেই আপনি নজরকাড়া।



বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া