বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

Indian Super League: মাঝমাঠে দুর্দান্ত কাউকো, নর্থইস্টকে দুরমুশ করে আইএসএলে জয়ের হ্যাটট্রিক মোহনবাগানের

Kaushik Roy | ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ২০ : ১৮


মোহনবাগান ৪ (লিস্টন, কামিংস, পেত্রাতোস, সাহাল): নর্থইস্ট ইউনাইটেড ২ (জুরিচ)

কৌশিক রায়: এদিন মাঠে বাগান সমর্থকরা একটি টিফো নামিয়েছিলেন তাতে লেখা ছিল "রিটার্ন অফ দ্যা হাল্ক"। হাল্কের চেহারার ওপর মুখ বসানো জনি কাউকোর। টিফোর কথাটা যে খুব একটা ভুল নয় তা একেবারে অক্ষরে অক্ষরে প্রমাণ করে দিলেন এই মিডফিল্ডার। একদিকে জনি কাউকোর অ্যাসিস্টের হ্যাটট্রিক, পাশাপশি মোহনবাগানের জয়ের হ্যাটট্রিক। ফিনল্যান্ডের এই মিডফিল্ডার স্কোয়াডে ফেরার পর থেকে মাঝমাঠের চেহারাই বদলে গিয়েছে বাগানের। যে কারণে শনিবার যুবভারতীতে নর্থ ইস্ট ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে শুরু থেকেই কাউকোকে নামিয়েছিলেন বাগান কোচ হাবাস। তার ফলও মিলল হাতেনাতে। হ্যাটট্রিকের অ্যাসিস্ট করে দলকে জয়ের হ্যাটট্রিক এনে দিলেন তিনি। যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে এদিন নর্থইস্ট ইউনাইটেডকে ৪-২ গোলে হারাল মোহনবাগান। মোহনবাগানের হয়ে গোল করেন লিস্টন কোলাসো, জেসন কামিংস, দিমিত্রি পেত্রাতোস এবং সাহাল আব্দুল সামাদ। চারটে গোলের মধ্যে তিনটেতেই অ্যাসিস্ট রয়েছে কাউকোর। ৩-৫-২ ছকে এদিন দল সাজিয়েছিলেন বাগান কোচ। দীপেন্দু, হেক্টরের সঙ্গে এদিন ডিফেন্সে ছিলেন শুভাশিস। একটু ওপর থেকে শুরু করেছিলেন অভিষেক সূর্যবংশী।



খেলার শুরুতেই চার মিনিটের মাথায় বক্সের ভেতর হ্যান্ডবল করে বসেন দীপেন্দু। জিতিনের ক্রস আটকাতে গিয়ে স্লাইডিং ট্যাকল সোজা গিয়ে কনুইতে লাগে বাগান ডিফেন্ডারের। পেনাল্টি থেকে গোল করতে ভুল করেননি ফর্মে থাকা নর্থ ইস্ট স্ট্রাইকার টমি জুরিচ। গোল খেয়ে প্রতিপক্ষকে একেবারে চেপে ধরে হাবাস ব্রিগেড। অবশেষে অপেক্ষার অবসান ঘটে প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে। জনি কাউকোর পাস থেকে ফাঁকায় বল পান লিস্টন কোলাসো। ভুল করেননি, দুর্দান্ত প্লেসমেন্টে গোল শোধ করেন। তবে প্রথমার্ধে বেশ কয়েকবার বাগান ডিফেন্সকে পরাজিত করে নর্থ ইস্ট। কিন্তু ওই একটার বেশি গোল আসেনি। লিস্টনের সমতা ফেরানোর পরেই মাঝমাঠে ফ্রি কিক পায় মোহনবাগান। দিমিত্রির ফ্রি কিকে বক্সের ভেতর মাথা ছোঁয়ান হেক্টর। বাড়ানো বল নামিয়ে কামিংসের কাছে সাজিয়ে দেন জনি কাউকো। নামানো বলে ট্যাপ ইন করে বল জালে জড়িয়ে দেন জেসন কামিংস।



দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ৫০ মিনিটের মাথায় নর্থ ইস্টের হয়ে সমতা ফেরান টমি জুরিচ। বক্সের ভেতর দীপেন্দুর ভুলে দুরন্ত শটে বিশাল কাইথকে পরাস্ত করেন জুরিচ। এগিয়ে যেতে বেশি সময় লাগেনি মোহনবাগানের। ৫৩ মিনিটে দিমিত্রির গোলে ফের লিড পায় সবুজ মেরুন। বাঁদিক থেকে লিস্টন রান নিয়ে বল বাড়ান কামিংসকে। ছোট্ট থ্রুতে পেত্রাতোসকে বল বাড়িয়ে দেন অস্ট্রেলিয়ান বিশ্বকাপার। দিমির জোরালো শটে এগিয়ে যায় মোহনবাগান। এরপর আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি নর্থইস্ট। ৫৭ মিনিটে জনি কাউকোর দুরন্ত পাস থেকে ৪-২ করেন সাহাল আব্দুল সামাদ। এদিন মাঠে উপস্থিত ছিলেন সাহালের পরিবার। গোল করে গ্যালারির সামনে এসে নিজের পরিবারকে উৎসর্গ করেন তিনি। পরপর তিন জয়ে লিগ টেবিলে দুই নম্বরে উঠে এল সবুজ মেরুন। বাগানের পরের ম্যাচ টেবিল শীর্ষে থাকা ওড়িশার সঙ্গে।

ছবি: অভিষেক চক্রবর্তী



বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া