বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

Tapas Roy Exclusive: আমার বাড়িতে ইডি আসার আগে তৃণমূল সাংসদের বাড়িতেই আলোচনা চলছিল: তাপস

Kaushik Roy | ০১ এপ্রিল ২০২৪ ২০ : ১৩


কৌশিক রায়: ভোটের নির্ঘণ্ট ঘোষণার পর থেকেই দম ফেলার সময় নেই। কলকাতা উত্তরের মত গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র, তার ওপর প্রতিপক্ষ তাঁর সদ্য প্রাক্তন দলের পোড়খাওয়া রাজনীতিবিদ। তীব্র গরমের মধ্যেও দুবেলা প্রচার আর মাঝের সময়টায় নিজের বাড়ির নিচের অফিসে কর্মসূচি। এভাবেই নির্বাচনের প্রস্তুতি সারছেন কলকাতা উত্তরের বিজেপি প্রার্থী তাপস রায়।

* দুবেলা প্রচার করছেন। মানুষের থেকে কেমন সাড়া পাচ্ছেন?

তাপস: খুব ভাল, অভূতপূর্ব। ভাবতে পারিনি এরকম সাড়া পাব। প্রচারে বেরোচ্ছি, সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলছি, তাঁদের কথাও শুনছি। সবাই উন্মুখ হয়ে রয়েছেন।

* আপনার বিপরীতে পোড়খাওয়া রাজনীতিবিদ। লড়াইটা কতটা কঠিন হতে পারে?

তাপস: কোনো লড়াইই নেই, কঠিন আবার কিসের। মানুষ ভোট দেওয়ার আগে দেখবে প্রার্থীর দেখা পাওয়া গেছে কিনা। সে কর্মীদের বা সাধারণ মানুষের কোনো কাজে লেগেছে কিনা। উত্তর কলকাতা বা বাংলা নিয়ে বহু প্রশ্ন তিনি সংসদে করবেন বলে আশা করা হয়েছিল। কিন্তু গত পাঁচ বছরে তিনি কোনও প্রশ্ন করেছেন কিনা সেটা তো দেখবে মানুষ। নির্বাচনে যাঁরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বা রাজনীতি করে, তারাই শুধু চালাক আর মানুষ কিছুই বোঝেন না এটা ভাবার তো কোনও কারণ নেই।

* তাহলে কি ধরে নেব কলকাতা উত্তর কেন্দ্রে আপনি জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী?

তাপস: ভীষণ। এতে দ্বিতীয়বার ভাবার প্রশ্নই নেই।

* শাসক দল তো বলছে আপনি কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার থেকে বাঁচতে বিজেপিতে এসেছেন, তারপর টিকিট পেয়েছেন।

তাপস: যেটা অন্যরা করেছে বা করছে, সেটা নিয়ে এই প্রার্থীও প্রশ্ন করেনি কখনওই। আগামী ২৫-২৬ দিনে আরও অনেক কিছু দেখতে পাবেন, অপেক্ষা করুন। আমি তো বলছি শাসক দল আমার বিরুদ্ধে আদালতে যাক। প্রমাণ করে দেখাক গত ১৩ বছরে বা তার আগে আমার রাজনৈতিক জীবনে কোনও চার্জ রয়েছে। আমার বাড়িতে ইডি আসার আগে আমার দলের সাংসদের বাড়িতেই সেটা নিয়ে আলোচনা হয়েছিল। কেন্দ্রীয় সংস্থা যে আসবে সেটা আমার দলের লোকেরাই ভাইরাল করেছিল। প্রতিপক্ষ তো বলবেই, কিন্তু ভাইরাল করার দায়িত্ব নিয়েছিল আমার দলের লোকেরাই।

* নির্বাচনের স্ট্র্যাটেজি নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে কথা হয়েছে?

তাপস: হ্যাঁ, বেশ কয়েকবার হয়েছে। আমাকে আর আলাদা করে কিছু বলতেই হয়নি। আমার থেকে বেশি উত্তর কলকাতাকে ওঁরা চেনেন। অনেক কিছুই কথা হয়েছে। সব তো এখন বলতে পারছি না। ধীরে ধীরে দেখতে পাবেন। বাংলার প্রশাসন তো নয় এটা যে খোঁজ খবর রাখছে না।

* একটা অরাজনৈতিক প্রশ্ন করছি। প্রচণ্ড গরম পড়েছে। তার মধ্যে দুবেলা প্রচার করছেন। আরও কর্মসূচি রয়েছে। রোজের রুটিন কীরকম?

তাপস: আমার প্রতিদিনের রুটিন অত্যন্ত সাধারণ। আমি রাজনৈতিক কর্মী,‌ দুবেলা কাজ নিয়েই থাকি। গরমে ঘরে বসে থাকার মানুষ আমি নই। আমার জীবন অত্যন্ত শৃঙ্খলাবদ্ধ। খুব নিয়মের মধ্যে আমি থাকি। আমার খাওয়াদাওয়াও অত্যন্ত সাধারণ।

* বরানগর থেকে তো সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যায় দাঁড়িয়েছেন।

তাপস: (প্রশ্ন শেষ না হতেই) সজল জিতবে। ভাল প্রার্থী, রাজনৈতিক কর্মী। তৃণমূল তো এখন সায়নী আর সায়ন্তিকার দল হয়ে গেছে।



বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া