বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

Abhishek Banerjee: 'বাতো বাতো মে' তুলে ধরা হবে দলের লড়াই-উন্নয়নের কথা, লোকসভা ভোটের প্রস্তুতি নিয়ে অভিষেক-বার্তা

Riya Patra | ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৮ : ৩৬


আজকাল ওয়েবডেস্ক: তুলে ধরতে হবে দলীয় লড়াইকে। রাজ্যের টাকা আদায়ে অভিষেক ব্যানার্জির লড়াই এবং মমতা ব্যানার্জির উন্নয়নমূলক বিভিন্ন প্রকল্পের কথা। সেইসঙ্গে তুলে ধরতে হবে কেন্দ্রীয় বঞ্চনার কথা। কীভাবে অভিষেকের নেতৃত্বে দিল্লিতে তৃণমূল লড়াই করেছিল সেই ভিডিও দেখিয়ে প্রচার করতে হবে। তুলে ধরতে হবে রাজ্যের মানুষের স্বার্থে তৃণমূলের লড়াইয়ের দিকটি। "চায়ে পে চর্চা"র মতো তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা অঞ্চলে অঞ্চলে "বাতো বাতো মে" এটাই তুলে ধরবেন সাধারণ মানুষের সামনে। শুক্রবার দলীয় সাংসদ, বিধায়ক ও ব্লক সভাপতিদের সঙ্গে এক বৈঠকে একথা জানিয়ে দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক ব্যানার্জি। দলের একটি সূত্রে জানা গিয়েছে একথা। ভার্চুয়ালি এই বৈঠক হয়েছে প্রায় এক ঘন্টা। দলের একটি সূত্র জানিয়েছে, অভিষেক নির্দেশ দিয়েছেন, প্রতি বিধানসভা থেকে ১৫ জন করে তফসিলি জাতি-উপজাতি কর্মীদের নাম পাঠাতে হবে। এঁদের মধ্যে ১০ জন তফসিলি জাতি ও পাঁচজন তফসিলি উপজাতি কর্মী থাকবেন। সেইসঙ্গে আগামী ২৯ ফেব্রুয়ারির মধ্যে রাজ্য দপ্তরে প্রতিটি বুথ থেকে একজন মহিলা কর্মী-সহ পাঠাতে হবে চারজন করে একনিষ্ঠ কর্মীর নাম। এঁদের মধ্যে থাকবেন দু" জন মাদারের, একজন যুব এবং একজন মহিলা কর্মী। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জি ঘোষণা করেছেন ১০০ দিনের জবকার্ড হোল্ডার যাঁরা কাজ করেও টাকা পাননি তাঁদের টাকা দেবে রাজ্য সরকার। আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি প্রতিটি বিধানসভা এলাকায় এবিষয়ে শিবির করে যারা এই টাকা পাবেন তাঁদের দিয়ে ফর্ম ভরার কাজ করতে হবে। রাজ্যের সমস্ত সাংসদ ও বিধায়করা নিজ নিজ এলাকায় এই শিবির পরিদর্শন করবেন। সাংসদদের অন্তত একবার এবং বিধায়কদের অন্তত দু" বার এই শিবির পরিদর্শন করতেই হবে। একই সঙ্গে এদিন নতুন স্লোগান বেঁধে দেন দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক। "জমিদারি হঠাও, বাংলা বাঁচাও" স্লোগান সামনে রেখে লড়াই করবেন দলীয় কর্মী-সমর্থকরা।
বৈঠকে এদিন সন্দেশখালি নিয়ে বিরোধীদের তোলা অভিযোগ প্রসঙ্গে চোপড়ার ঘটনার কথা উল্লেখ করে অভিষেক বলেন, চোপড়ায় যে চার চারটি শিশুর মৃত্যু হল সেই বিষয়ে কেন বিরোধীরা কোনও কথা বলছে না? 
এদিনের বৈঠকে উপস্থিত এক নেতার কথায়, আগামী লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল লড়াই করতে চলেছে দুটি বিষয়কে সামনে রেখে। এক, কেন্দ্রীয় সরকার কীভাবে রাজ্যের সঙ্গে বিমাতাসুলভ আচরণ করছে আর দ্বিতীয়টি হল, রাজ্যের মানুষের পাওনা আদায়ে মমতা ব্যানার্জি পরিচালিত সরকার কতটা আন্তরিকভাবে সচেষ্ট। এই দুই বিষয়কে হাতিয়ার করে যাতে সমস্ত নেতা-কর্মীরা এগিয়ে যান এবং দেরি না করে এই প্রচার শুরু করেন সেই বার্তাই দিলেন অভিষেক।



বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া