শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

Amit Shah: কাশ্মীরের দায় নেহেরুর ঘাড়ে চাপালেন শাহ

Riya Patra | ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৫ : ১৬



বীরেন ভট্টাচার্য, নয়া দিল্লি: কাশ্মীর সমস্যার দায় দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর ঘাড়ে চাপালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তাঁর দাবি, নেহেরুর ভুলের জন্যই কাশ্মীরে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে এবং ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করে কাশ্মীরে শান্তি ফিরিয়েছে মোদি সরকার। এদিনের বক্তব্যে আগাগোড়া বিগত কংগ্রেস সরকার এবং নেহেরুকে দায়ী করায় ক্ষুব্ধ হয় বিরোধী শিবির। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে ওয়াকআউট করে বিরোধীরা। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অভিযোগ, যখন ভারতীয় সেনারা জয়লাভ করেছিলেন সেই সময় যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করেছিলেন নেহেরু।

মঙ্গলবার লোকসভায় জম্মুও কাশ্মীর সংরক্ষণ এবং জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। এদিন জবাবি ভাষণে আগাগোড়া নেহেরুকে কাঠগড়ায় তোলেন অমিত শাহ। তিনি বলেন, কাশ্মীর নিয়ে দুটি গুরুতর ভুল করেছিলেন নেহেরু। শাহের কথায়, "প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে বুটি ব্লান্ডার করেছিলেন। প্রথম ভুল করেছিলেন যুদ্ধ বিরতি ঘোষণা করে এবং দ্বিতীয় ভুল ছিল, কাশ্মীর সমস্যাকে রাষ্ট্রপুঞ্জে নিয়ে যাওয়া।" তাঁর কথায়, "যদি জওহরলাল নেহেরু সঠিক পদক্ষেপ করতেন, তাহলে বর্তমানে পাক অধিকৃত কাশ্মীর ভারতের অন্তর্ভুক্ত থাকত। এটা ছিল ঐতিহাসিক ভুল।" তাঁর দাবি, নেহেরুর ভুলের জন্যই কাশ্মীরের বাসিন্দাদের বছরের পর বছর ভুগতে হয়েছে। কাশ্মীরি পণ্ডিতদের প্রসঙ্গ তুলে ধরে অমিত শাহ বলেন, "ভোটব্যাঙ্কের রাজনীতির চিন্তা না করে যদি প্রথম থেকেই যদি সন্ত্রাসবাদ দমনে পদক্ষেপ করা হত, তাহলে কাশ্মীর পণ্ডিতদের কাশ্মীর উপত্যকা ছাড়তে হত না।" কংগ্রেসের ভুলের কারণেই মোদি সরকারকে পদক্ষেপ করতে হয়েছে বলে দাবি করেন অমিত শাহ। জম্মু ও কাশ্মীর বিল দুটির পাস করিয়ে ৭০ বছর ধরে বঞ্ছিত মানুষদের ন্যায় বিচার দেওয়া হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বিরোধীদের তোলা দলিত বা ওবিসি সম্প্রদায়ের জন্য সংরক্ষণের দাবিকে কটাক্ষ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, "ওবিসি সম্প্রদায়ের সবচেয়ে ক্ষতি করেছে কংগ্রেস। দলিত শ্রেণীর উন্নয়নের জন্য দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি।" জম্মু ও কাশ্মীর সংরক্ষণ এবং জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল নিয়ে জবাবি ভাষণে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, "আমি বিশ্বাস করি যে, ২০২৪ সালে ক্ষমতায় ফিরবে মোদি সরকার এবং ২০২৬ সালের মধ্যে জম্মু ও কাশ্মীর সন্ত্রাসবাদ মুক্ত হবে।" কংগ্রেসের লোকসভার নেতা অধীর চৌধুরী প্রস্তাব দেন, জম্মু ও কাশ্মীর এবং সেই বিষয়ে নেহেরুর অবদান নিয়ে একদিন আলোচনা হোক সভায়। ট্রেজারি বেঞ্চকে প্রয়াত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর অটল বিহারী বাজপেয়ির কাশ্মীরিয়ত, জামহুরিয়ত এবং ইনসানিয়ত নীতি অনুসরণের কথা বলেন অধীর। শাহ লাগাতার নেহেরুর সমালোচনায় ক্ষুব্ধ হয়ে ওয়াক আউট করেন কংগ্রেস। জবাবি ভাষণের পর কাশ্মীর সংক্রান্ত দুটি বিল পাস হয়ে যায় লোকসভায়।



বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া