বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

MAHUA MOITRA : মহুয়া মৈত্রের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ করতে পারে স্বাধিকার কমিটি

Sumit | ০৫ নভেম্বর ২০২৩ ১২ : ২৩


বীরেন ভট্টাচার্য, দিল্লি :  এথিক্স কমিটির পরবর্তী বৈঠক ৭ নভেম্বর। অর্থাৎ সেদিনই ঠিক হতে পারে মহুয়ার ভাগ্য। অর্থের বিনিময়ে প্রশ্ন কাণ্ডে ইতিমধ্যেই বিজেপি বেশ কয়েকটি অভিযোগ এনেছে তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদের বিরুদ্ধে। নিজের বক্তব্য পেশ করেছেন মহুয়া মৈত্রও।ব্যক্তিগত প্রশ্ন নিয়ে সেদিনও ফের একবার এথিক্স কমিটির বিরুদ্ধে তোপ দেগেছিলেন মহুয়া। মহুয়ার সুরে সুর মিলিয়েছিলেন অন্য বিরোধী সাংসদরাও। বিজেপির দাবি ছিল মহুয়া এবং বিরোধী সাংসদরা এথিক্স কমিটির গোপনীয়তা ভঙ্গ করেছেন। তবে এককিছুর পরও আদানি প্রসঙ্গে মোদী সরকারকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি মহুয়া। তিনি এখনও নিজের বক্তব্যে অনড়। বিজেপির সঙ্গে আদানিদের যে সম্পর্ক রয়েছে তা নিয়ে প্রতিবারই কেন্দ্রকে একহাত নিয়েছেন তৃণমূল সাংসদ। বিজেপি যে আসন্ন শীতকালীন অধিবেশনে তাঁকে সংসদে রাখতে চায় না সেবিষয়টি নিয়েও সরব হয়েছে মহুয়া। আর সংসদের যে মেল অ্যাড্রেস নিয়ে বিতর্ক হয়েছে তার পাল্টা হিসাবে মহুয়া আগেই জানিয়েছেন বহু সাংসদই এই মেল অ্যাড্রেস ১০ জনকে দিয়ে রেখেছে। গত বৃহস্পতিবার তাঁকে যেভাবে নানান অস্বস্তিকর প্রশ্ন করা হয়েছে, তাকে তদন্তমূলক বস্ত্রহরণ বলে মন্তব্য করেছেন মহুয়া মৈত্র। অন্যদিকে, মহুয়ার বিরুদ্ধে তদন্তে অসহযোগিতা করার অভিযোগ করেছেন স্বাধিকার কমিটির চেয়ারম্যান বিজেপি সাংসদ বিনোদ সোনকর। এদিকে, রবিবারেও বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন মহুয়া মৈত্র। নিজের এক্স অ্যাকাউন্টে তিনি লেখেন, "বিজেপি আমার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করবে শুনে শিহরণ হচ্ছে। তাদের সকলকে স্বাগত। তবে জানি যে, আমার কত জোড়া জুতো আছে, সেটা নিয়ে তদন্ত করার আগে আদানি গোষ্ঠীর ১,৩০,০০ কোটি টাকার কয়লা কেলেঙ্কারির তদন্ত করতে হবে ইডি এবং সিবিআইকে।" তিনি আরও লিখেছেন, "এছাড়াও বিজেপির আরও একটি বিষয়, মহিলা সাংসদদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ধারণা তৈরি করে তাঁকে বের করে দেওয়ার আগে মনে রাখতে হবে, আমার কাছে স্বাধিকার কমিটির অসম্পাদিত রেকর্ড রয়েছে। চেয়ারম্যানের অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন, বিরোধীদের প্রতিবাদ, বিক্ষোভ, আমার প্রতিবাদ সবাই রয়েছে। নির্লজ্জ, বেহায়া।" মহুয়া মৈত্রের এক্স অ্যাকাউন্টে লেখা মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে তাঁকে কটাক্ষ করেছেন বিজেপি সাংসদ নিশিকান্ত দুবে। পাল্টা তিনি লিখেছেন, "মহুয়ার লেখা দেখুন। মনে হয়, ভুল কাজের জন্য তাঁকে বরখাস্ত করেছিল ব্যাঙ্ক। গতকাল তিনি সংবাদমাধ্যমে ১৩ হাজার কোটি টাকার কয়লা কেলেঙ্কারির কথা তুলেছিলেন। আজ তিনি ১ লক্ষ ৩০ হাজার কোটি টাকার কেলেঙ্কারির কথা বলছেন। সত্যি কি ভয় পেয়েছেন?"       



বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া