বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

Bangladesh: তারকাদের বেশি কটাক্ষ শুনতে হয়, তবু নেতিবাচক ভাবনা ঘেঁষতে দিই না: তিশা

নিজস্ব সংবাদদাতা | ০১ নভেম্বর ২০২৩ ১৮ : ২৪


পর্দার তারকাদের তো ‘রূপকথা’ জীবন! শুধুই অলীক কল্পনায় বোনা। তাঁরা বাস্তবের মাটিতে পা রেখে চলেন না। ফলে, সাধারণ মানুষের ভাল-মন্দ, দুঃখ কিছুই অনুভব করতে পারেন না। অগাধ সম্পত্তি, ঐশ্বর্য, খ্যাতি-প্রতিপত্তির মালিক। ফলে, ইচ্ছেমতো জীবন কাটানোর ছাড়পত্র যেন শুধুই তাঁদের। এমনই ধারণা তাঁদের নিয়ে। সেই ধারণা ভেঙে দিলেন বাংলাদেশের প্রথম সারির নায়িকা নুসরত ইমরোজ তিশা। আগামী প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করতে নিজের কিছু ভাবনা সম্প্রতি ভাগ করে নিয়েছেন তিনি। সেখানেই তিনি কটাক্ষকারীদের মোকাবিলার পাঠ পড়ালেন সবাইকে।

সম্প্রতি তিনি এবং তাঁর পরিচালক স্বামী ফারুকি মুখোমুখি হয়েছিলেন আগামী প্রজন্মের। সেখানেই তিনি সাফ বলেন, ‘‘আমার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নেই। একটি পেজ আছে। আমরা, তারকারা সেখানে সারাক্ষণ কটাক্ষের শিকার হয়। সবার থেকে বেশি নেতিবাচক মন্তব্য করা হয় আমাদের। পাত্তাই দিই না। মাথা ঘামাই না সে সব নিয়ে।’’ তাঁর আরও দাবি, এত নেতিবাচকতার মধ্যে থেকেও তিনি ইতিবাচক। কারণ, কোনও রকম নেতিবাচকতাকে তিনি নিজের ধারপাশে ঘেঁষতে দেন না। এই প্রসঙ্গে তিশা উদাহরণ দেন নিজের জীবনের। বলেন, ‘‘বিয়ের ১১ বছর পরে আমার সন্তান হয়। তার আগে কান ঝালাপালা হয়ে যেত একটাই প্রশ্ন শুনে, ‘কবে বাচ্চা নেবেন?’’ তাঁর যুক্তি, কেউ এই প্রশ্ন করলেই তিনি পাল্টা প্রশ্ন করতেন, তাঁর সন্তানের দায়িত্ব কি অন্য কেউ নেবেন? সেটা যখন হবে না তখন তিনি তাঁর সময় বুঝে সন্তানধারণ করবেন।



তিশা এই প্রজন্মের উদ্দেশ্যে জানিয়েছেন, ভবিষ্যত তাঁদের হাতে। তাঁরাই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কাণ্ডারি। তাই কোনও ভাবে নেতিবাচকতার কাছে হার মানলে চলবে না। সব মন্দ কথা এড়িয়ে যেতে হবে। এই পথে হেঁটেই তিনি কখনও আশাহত হননি। অবসাদে ভোগেননি। কারণ, এই ধরনের চিন্তা মাথায় আসতেই দেননি। নায়িকার আরও পরামর্শ, সব পেশাতেই ওঠানামা, সাফল্য-ব্যর্থতা থাকবে। তাই নিয়ে অহেতুক অবসাদে ভোগা উচিত নয়। চারপাশে প্রচুর ইতিবাচক মানুষের বাস। তাঁদের সঙ্গে মিশলে নেতিবাচক পালাতে পথ পাবে না। ফারুকির দাবি, তিনি তাঁর ভুল থেকে শিক্ষা নিয়েছেন। জীবনে এর থেকে বড় শিক্ষক দ্বিতীয় কেউ নেই।



বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া