ফিজিক্সের ছাত্র ছিলেন। আগ্রহ ছিল সাউন্ড রেকর্ডিংয়ে। তা শেখার জন্যই স্টুডিওয় প্রবেশ। ঘটনাচক্র হয়ে গেলেন চলচ্চিত্র পরিচালক। মৃণাল সেন। ‘‌আমরা যদি তিনজনের কথা ভাবি, বাবা, ঋত্বিকবাবু আর মৃণালবাবু, তাহলে দেখব মৃণালবাবু অন্য দুজনের থেকে একদম, একেবারে আলাদা। ছবির কনসেপ্টে একদম অন্য অদ্ভুত মেজাজ।’‌ বলেছিলেন সন্দীপ রায়। নর্থ ক্যালকাটা ফিল্ম সোসাইটির মুখপত্র ‘‌চিত্রভাষ’‌–‌এর প্রতিটি সংখ্যাই মনোজ্ঞ। পত্রিকার সুবর্ণজয়ন্তী সংখ্যার বিষয় মৃণাল সেন। ওঁর নিজের লেখা, ওঁর সাক্ষাৎকার, ওঁকে নিয়ে অন্যদের লেখা আর দুর্দান্ত সাদা–‌কালো ছবি। নিয়মিত বিভাগে আছেন রামানন্দ সেনগুপ্ত, অ্যান্থনি কুইনকে নিয়ে লেখা। দুই সম্পাদক জ্যোতিপ্রকাশ মিত্র ও মলয়রঞ্জন মুখোপাধ্যায়। দেবব্রত ঘোষের প্রচ্ছদ নজরকাড়া। সংখ্যাটা চলচ্চিত্ররসিকদের সংগ্রহে না রাখলেই।

জনপ্রিয়

Back To Top