আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ আপনি পাহাড়ে উঠছেন। চারপাশে সবকিছুই খোলা। মাথার ওপর মেঘ ভেসে বেড়াচ্ছে, সেই দৃশ্য দেখতে পারেন। দুই পাশের জানালা দিয়ে দেখতে পারেন প্রকৃতি। এমনই 
ট্রেন চালু হতে চলেছে বিশাখাপত্তনম থেকে আরাকু যাওয়ার পথে। পুরো ট্রেনটাই থাকবে কাচ দিয়ে মোড়া। ট্রেনের জানালা দিয়ে অনেকটাই দেখা যায়। কিন্তু ভেবে দেখুন, পুরো ট্রেনটাই যদি কাচের হয়, তাহলে কেমন লাগবে?‌ কোথাও কোনও বাধা থাকবে না। দেওয়াল যেমন কাচের, তেমন মাথার ওপরের ছাদও হবে কাচের। মনে হবে ট্রেনে নয়, আপনিও সেই প্রকৃতির অংশ হয়ে গিয়েছেন। কালকা থেকে সিমলা যাওয়ার পথে শিবালিশ এক্সপ্রেসে কিছুটা এরকম ব্যবস্থা আছে। তবে তার ছাদ কাচের নয়।
একেকটি কোচ বানানোর খরচ পড়ছে ৩ কোটি ৩৮ লাখ। বিশাখাপত্তনম থেকে অনেকেই যান আরাকুতে। মনোরম সেই যাত্রাপথকে আরও রোমাঞ্চকর করে তোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর ফলে পর্যটকদের কাছে ট্রেনটির ও আরাকুর আকর্ষণ আরও বাড়বে, এমনটাই মনে করছেন রেল কর্তারা। তবে খুব বেশি রোদ হলে ভয়ের কিছু নেই। সেই সময় কাচ অসচ্ছ হয়ে যাবে। আপনার শরীরে আঁচ পড়বে না। কাশ্মীর উপত্যকাতেও এই ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত প্রায় পাকা। কখনও পাহাড়ের বুক চিরে ছুটবে ট্রেন, আবার সুড়ঙ্গের ভেতর দিয়েও ছুটবে ট্রেন। ভূস্বর্গ তখন আর ভয়ঙ্কর নয়, হয়ে উঠবে আরও রোমাঞ্চকর।  

জনপ্রিয়

Back To Top