আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ এতদিন খাঁচায় দেখা যেত বাঘ। বড়জোর সামনে একটু খোলা জায়গা, তারপর উঁচু পাঁচিল। সেও আরেক খাঁচা। সেই খাঁচার বাঘ তো আমরা অনেকেই দেখেছি। বাঘ যদি বনে ঘুরে বেড়ায়, আর মানুষ যদি খাঁচাবন্দী থাকে, তাহলে কেমন হয়?‌ তেমনটাই তো হচ্ছে শিলিগুড়ি সাফারি পার্কে। 
বাংলার প্রথম এই সাফারি পার্ক উদ্বোধন হয়েছে রবিবার। সোমবার সকাল থেকেই ভিড় বেঙ্গল সাফারি পার্কের সামনে। এমনিতে সোমবার পার্ক বন্ধ থাকে। কিন্তু ছুটির দিন, তার ওপর গতকাল উদ্বোধন হয়েছে, তাই আজ খুলেই রাখা হয়েছিল। সকাল থেকেই বাবা–‌মার সঙ্গে অনেক বাচ্চা ভিড় করছে বাঘ দেখার জন্য। এত দর্শক, কিন্তু গাড়ি তো অল্প। তাই অপেক্ষা করা ছাড়া উপায় কী?‌ শীলা ও স্নেহাশিস–‌একসঙ্গে এই দুই বাঘকে আনা হয়েছে। কিন্তু এখনও তাদের ঠিক ‘‌ভাব’‌ হয়নি। তাই দুজনকে একসঙ্গে ছাড়াও হচ্ছে না। শীলাকে বন্দী রেখে ছাড়া হচ্ছে স্নেহাশিসকে। পরে স্নেহাশিসকে বিশ্রামে পাঠিয়ে পাঠানো হচ্ছে শীলাকে। তবে কয়েকদিন পর দুই বাঘকে নাকি একসঙ্গেই ছাড়া হবে। সাফারি পার্ক উদ্বোধনের কথা অনেকেই টিভি মারফত, কাগজ মারফত জেনে ফেলেছেন। বাচ্চারা সকাল থেকেই ঝোঁক ধেরেছে। যত বেলা বাড়বে, এই ভিড় আরও বাড়বে। কীভাবে সামাল দেবে নতুন অতিথি শীলা ও স্নেহাশিস?‌ 

জনপ্রিয়

Back To Top