আজকাল ওয়েবডেস্ক: কর্নাটকে বিজেপি সরকার গড়তে চলেছে। বৃহস্পতিবারই মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নিতে পারেন ইয়েদুরাপ্পা। বিশেষ সূত্রে পাওয়া গিয়েছে, বিজেপিকে ইতিমধ্যেই ৭ জন কংগ্রেস বিধায়ক সমর্থন করেছে। এমনকী বিজেপির পাশে দাঁড়িয়েছেন ১ নির্দল বিধায়কও। মঙ্গলবারই ১০৪টি আসন পেয়ে কর্নাটকে জয়ী হয় বিজেপি। এর পাশাপাশি, বুধবার পর্যন্ত কংগ্রেসের তিন বিধায়কের সঙ্গে কোনও ধরনের যোগাযোগ করতে পারছিলেন না কংগ্রেস–জেডিএস যৌথ নেতৃত্ব।
বুধবার সকালে বেঙ্গালুরুতে কংগ্রেসের নতুন বিধায়কদের নিয়ে দলীয় বৈঠকে গরহাজির তিনজন কংগ্রেস বিধায়ক। কংগ্রেসের ৩ বিধায়কের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। রাজশেখর পাটিল, নরেন্দ্র এবং আনন্দ সিংয়ের সঙ্গে কোনোভাবেই যোগাযোগ করতে পারছিল না দল। বৈঠকে অনুপস্থিত ছিলেন জেডিএসের ২ বিধায়কও। অপরদিকে, আর এক কংগ্রেস বিধায়কের দাবি, বিজেপির পক্ষ থেকে তাঁকে দলে আসার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। বায়াপুরের কংগ্রেস বিধায়ক অমরগৌড়া পাটিল বলেন, ‘‌আমায় বিজেপি নেতাদের পক্ষ থেকে ফোন করা হয়েছিল। আমায় মন্ত্রী হওয়ার প্রলোভন দিয়ে তাঁদের দলে যোগ দিতে বলেন। কিন্তু আমি সেই প্রস্তাব গ্রহণ করিনি। এইচ ডি কুমারস্বামী আমাদের মুখ্যমন্ত্রী।’‌ জেডিএসের এক বিধায়ক জানান, চার থেকে পাঁচজন তাঁদের দলের বিধায়কের কাছে বিজেপি প্রস্তাব পাঠিয়েছে। যদিও এই অভিযোগ নাকচ করেছেন কংগ্রেসের বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া। তিনি সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘‌কংগ্রেসের সব বিধায়করা দলেই আছেন। কেই নিখোঁজ হননি। আমরাই সরকার গড়ব বলে আত্মবিশ্বাসী।’‌ 
অসমর্থিত সূত্রের খবর, বিধায়কদের নিরাপত্তার খাতিরে তাঁদের একটি রিসর্টে লুকিয়ে রাখা হবে। বিজেপি নেতা কেএস ইয়েদুরাপ্পা যদিও স্বীকার করেছেন যে তাঁর দলের পক্ষ থেকে কংগ্রেস এবং জেডিএস বিধায়কদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছিল। তবে কর্নাটকে সরকার গড়ছে কারা তা নিয়ে এখনও জল্পনা তুঙ্গে।  

জনপ্রিয়

Back To Top