আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ শেষ হয়ে গেল বাংলা চলচ্চিত্রের এক অধ্যায়। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন সুপ্রিয়া দেবী। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। দীর্ঘদিন ধরেই নানা শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। তাঁর প্রয়াণে টলিউডে নেমেছে শোকের ছায়া। সার্কুলার রোডে তাঁর বাড়িতে একে একে ভিড় জমাচ্ছেন তাঁর ঘনিষ্ঠ কলাকুশলীরা। সুপ্রিয়ার প্রয়াণে শোকাহত কিংবদন্তি অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘‌ষাট বছরের বন্ধুত্বে ছেদ পড়ল।বিধ্বস্ত লাগছে। বাংলা ছবি স্বর্ণযুগের একজন অন্যতম স্থপতি ছিলেন।’‌ আবার পরিচালক তরুণ মজুমদারের কথায়, ‘‌সুপ্রিয়ার চলে যাওয়ার শোকটা ভাষায় ব্যক্ত করা যাবে না।’‌ সুপ্রিয়াকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, মুনমুন সেন, রাইমা সেন, অরূপ বিশ্বাসরা।
মাত্র ৭ বছর বয়স থেকেই অভিনয় করতে শুরু করেন তিনি। ঋত্বিক ঘটকের মেঘে ঢাকা তারা হোক কী বনপলাশীর পদাবলি— সুচিত্রা নজর কেড়েছেন সব ধরনের ভূমিকায় অভিনয়ের জন্যই। উত্তমকুমার থেকে সৌমিত্র, সকলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অভিনয় করেছেন। ফিল্মফেয়ার, পদ্মশ্রী, বঙ্গ বিভূষণ সহ একাধিক সম্মানে ভূষিত হয়েছেন তিনি। সুপ্রিয়াদেবীর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। টুইটারে তিনি লেখেন, ‘‌সুপ্রিয়াদেবীর মতো একজন কিংবন্তীকে আমরা হারালাম। বাংলা চলচ্চিত্রে ওঁর অবদান আমরা ভুলব না। ওঁর পরিবারকে সমবেদনা জানাই।’‌ মমতা আরও জানান, দুপুর তিনটের সময় শেষযাত্রায় নিয়ে যাওয়া হবে সুপ্রিয়া দেবীকে। তারপরে রবীন্দ্রসদনে শায়িত রাখা হবে সুপ্রিয়ার মরদেহ। সাড়ে ছ’‌টা পর্যন্ত সাধারণে শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন তাঁকে। তারপরে তাঁর দেহ নিয়ে যাওয়া হবে কেওড়াতলা মহাশ্মশানে।
১৯৩৩ সালের ৮ জানুয়ারি তৎকালীন বর্মার মিতকিনায় জন্মগ্রহণ করেন সুপ্রিয়া দেবী। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বর্মা থেকে কলকাতা চলে আসে সুপ্রিয়া দেবীর পরিবার। মাত্র সাত বছর বয়সে অভিনয়ের জগৎে পা রাখেন প্রয়াত অভিনেত্রী। ছোট থেকেই নাচ ও অভিনয়ে পারদর্শী ছিলেন তিনি। প্রতিবেশী চন্দ্রাবতী দেবীর হাত ধরেই অভিনয়ের জগতে পা রাখেন তিনি। তাঁর অভিনীত বিখ্যাত ছবির মধ্যে রয়েছে ‘মধ্য রাতের তারা’, ‘কোমলগান্ধার’, ‘উত্তরায়ণ’, ‘সূর্যশিখা’, ‘লালপাথর’,  ‘শুধু একটি বছর’, ‘কাল তুমি আলেয়া’, ‘তিন অধ্যায়’, ‘চৌরঙ্গী’, ‘সবরমতী’, ‘মন নিয়ে’, ‘চিরদিনের’, ‘সন্ন্যাসী রাজা’, ‘বাঘ‌বন্দী খেলা’।

 

শুক্রবার সাড়ে তিনটে নাগাদ সুপ্রিয়া দেবীর দেহকে নিয়ে আসা হয় রবীন্দ্র সদনে। এখানেই তিনঘণ্টার জন্য রাখা হবে দেহ। টলিউডের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন তাঁর গুণমুগ্ধরাও। ইতিমধ্যেই রবীন্দ্রসদনে এসে পৌঁছেছেন তথ্য-সংস্কৃতি মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন এবং মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। ইতিমধ্যেই প্রিয় নায়িকাকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে শুরু করেছেন অনুগামীরা। সঙ্গে আছেন সুপ্রিয়া দেবীর মেয়ে সোমাদেবী ও নাতি। সন্ধ্যে সাড়ে ছ'টা নাগাদ অভিনেত্রীর দেহ নিয়ে যাওয়া হবে কেওড়াতলা শ্মশানে। সেখানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সামনে প্রয়াত অভিনেত্রীকে গার্ড অফ অনার দিয়ে শেষ বিদায় জানানো হবে।

জনপ্রিয়

Back To Top