দীপঙ্কর নন্দী
বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে কড়া জবাব দিলেন তৃণমূল সাংসদ ও দলের মুখপাত্র সৌগত রায়। শনিবার সৌগত বলেন, ‘‌রাজনীতি ছেড়ে দেব। মরে গেলেও বিজেপি–তে যাব না।’‌ অর্জুন এদিন বলেছেন, সৌগত রায়–সহ তৃণমূলের ৫ সাংসদ বিজেপি–তে যোগ দিচ্ছেন। অর্জুনের এই ধরনের কথা শুনে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সৌগত। তিনি বলেন, ‘‌অর্জুন বাহুবলী, গুন্ডা। আমার সম্পর্কে কোন সাহসে এই ধরনের মন্তব্য করেন। আমি তৃণমূলের সাংসদ, দলের মুখপাত্র। তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি–র মতো সাম্প্রদায়িক দলে কেন যাব?‌ অর্জুনের বাবা সত্যনারায়ণ সিং প্রাক্তন কংগ্রেস বিধায়ক। সজ্জন ব্যক্তি। ওঁর সঙ্গে আমার কাজ করার সুযোগ হয়েছে। ছেলের সঙ্গে বাবার কোথাও মিল নেই।’‌
সৌগত বলেন, ‘‌বিজেপি–র আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য বাংলায় এসে সংগঠনের দায়িত্ব নিয়েছেন। তিনি বাংলায় সহকারী পর্যবেক্ষক। আমার দৃঢ় বিশ্বাস অমিত মালব্যই অর্জুনকে বলেছেন, যত পারো মিথ্যে খবর ছড়িয়ে দাও। তাহলে দেখবে ওদের গায়ে লাগবে। আসলে আমি অর্জুনের উদ্দেশ্যটা বুঝতে পেরেছি। আমি তো বিজেপি–কে রোজ আক্রমণ করছি। রাজ্যপালেরও সমালোচনা করছি। ওরা চাইছে আমার মুখ বন্ধ করতে। মুখ তো এভাবে বন্ধ হয় না। প্রতিদিনই মিডিয়া কিছু কিছু বিষয়ে জানতে চাইলে বলতে হয়। আরও বলব। থামার কোনও চেষ্টাই করব না। অর্জুন সিং যে একজন গুন্ডা তা ব্যারাকপুর, ভাটপাড়ায় গেলেই বোঝা যায়। হাবভাব, আচার–আচরণ অন্যরকম। বহুবার মিডিয়ায় ওর সম্পর্কে নানা অভিযোগ উঠে এসেছে। লোকসভায় কীভাবে জিতেছে, সেটা সকলেই দেখেছে।’‌
রাজ্যের মন্ত্রী ও তৃণমূল মহিলা কংগ্রেসের সভাপতি চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য বলেন, ‘‌অর্জুন কি শুভেন্দু অধিকারীর মুখপাত্র হয়ে গেলেন?‌ শুভেন্দু তো দলেই আছেন। গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী।’‌ এদিন অর্জুন শুভেন্দুকে সমর্থন করে মন্তব্য করেন।

জনপ্রিয়

Back To Top