আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌আগামী লোকসভা ভোটে উত্তরপ্রদেশের ৮০টি আসনের জন্য এসপি–বিএসপি জোট চূড়ান্ত করলেন অখিলেশ এবং মায়াবতী। টুইটারে জোটকে স্বাগত জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। জোট ঘোষণার পর যৌথ সাংবাদিক বৈঠকে মায়াবতী নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহ্‌ কে কটাক্ষ করে বলেন, ‘‌গুরু–শিষ্য, মোদি–শাহ্–এর ঘুম উড়িয়ে দেবে এই জোট। ইতিহাস মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, এর আগেও ১৯৯৩ সালে উত্তর প্রদেশ বিধানসভায় জোট করেছিলেন দু’‌দলের দুই তৎকালীন প্রধান, কাঁসিরাম এবং মুলায়ম সিং যাদব। কিন্তু পরে কিছু সমস্যা হওয়ায় তা ভেঙে যায়। এবার দেশের কথা ভেবে, দেশের মজুর, কৃষক, দরিব, দলিত, শোষিত, সংখ্যালঘু, মহিলা, কর্মহীন যুবক–যুবতী, মহিলা, ছোট ব্যবসায়ী এবং সমাজের পিছিয়ে পড়া শ্রেণির উন্নতির স্বার্থে ফের জোট গড়েছে এসপি এবং বিএসপি। 
শুধু লোকসভার জন্য নয়, এসপি সভাপতি অখিলেশ যাদব বললেন, বিজেপির অহঙ্কার খর্ব করতে এই জোট দরকারি ছিল। বিজেপি তাঁদের জোট ভাঙতে যে কোনও স্তরে নামতে পারে বলে দু’‌দলের কর্মীদেরই সতর্ক থাকতে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। মায়াবতীর দাবি, এই জোট এতটাই শক্তিশালী যে তা লোকসভা ভোটে বিজেপিকে উড়িয়ে দেবে। পিছিয়ে পড়া শ্রেণির আর্থিক এবং সামাজিক উন্নতি চোখে পড়বে।
নিজের আসন এখনই না জানালেও মায়াবতী বললেন, ‘‌লোকসভা ভোটের জন্য দু’‌দলের আসন বণ্টনও চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছে। এসপি এবং বিএসপি ৩৮টি করে আসনে লড়বে। ‌কংগ্রেসের সঙ্গে জোট না করেই আমেঠি এবং রায়বরেলী তাদের ছাড়া হচ্ছে যাতে বিজেপি ওখানে কংগ্রেসকে কোনওভাবেই বিভ্রান্ত করতে না পারে। বাকি দুটি আসন অন্যান্য দলকে ছাড়া হবে। ইভিএম–এ কারচুপি না করলে বিজেপিকে একটাতেও জিততে দেব না। এসপি–বিএসপি জোটের শক্তি এর আগেও লোকসভা এবং বিধানসভা উপনির্বাচনে দেখেছে রাজ্য’‌।  
কংগ্রেসকে জোটে না রাখা প্রসঙ্গে মায়াবতীর জবাব, ‘‌আগেও এসপি বা বিএসপি কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করেছিল। কিন্তু লাভ হয়নি। কংগ্রেস বা বিজেপি, শাসক যেই হোক তাদের নীতি মোটামুটি একরকম। কংগ্রেস আগেও বহু বছর কেন্দ্রে এবং বিভিন্ন রাজ্যের শাসক হিসেবে ছিল। কিন্তু সমাজের পিছিয়ে পড়া শ্রেণির কষ্ট, দুরবস্থা মেটাতে সেভাবে কোনও ব্যবস্থা নেয়নি তারা। কংগ্রেসের সময় ঘোষিত জরুরি অবস্থা ছিল, এখন অঘোষিত জরুরি অবস্থা।’‌ কংগ্রেস–বিজেপির দুর্নীতি প্রসঙ্গে মায়াবতীর কটাক্ষ, ‌যুদ্ধবিমান নিয়ে কংগ্রেস এবং বিজেপি দু’‌দলই দুর্নীতি করেছে। বফর্স নিয়ে দুর্নীতি কংগ্রেসকে ডুবিয়েছে। রাফালে নিয়ে বিজেপির দুর্নীতি তাদের ডোবাবে।        
বয়ঃজেষ্ঠ্য মায়াবতীর প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে অখিলেশের মন্তব্য, যেদিন বিজেপির নেতারা মায়াবতীকে অপমান করেছিলেন এবং বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব সেই নেতাদের শাস্তি দেওয়ার বদলে তাঁদের গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের দায়িত্ব দিয়েছিল, সেদিন থেকেই বিএসপি–র সঙ্গে জোট বাঁধার পরিকল্পনা করছিলেন তিনি। বললেন, ‘‌মায়াবতীজির সম্মান আমার সম্মান। বিএসপি–এর সঙ্গে জোটের জন্য প্রয়োজন হলে আমরা দুপা পিছিয়ে যাব। জোট করার মায়াবতীর এই ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তকে আমি সম্মান করি।’‌  মায়াবতীও অখিলেশকে সমর্থন করে বললেন, জোটের খবরে হারার ভয়ে খনি দু্্র্নীতি নিয়ে অখিলেশের বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে বিজেপি। কিন্তু তাঁর দল সবসময় অখিলেশের পাশে থাকবে। 
রাম জন্মভূমি, হনুমানের জাতি, বুলেট ট্রেন, ঋণ মকুব প্রসঙ্গও উঠে এল অখিলেশের কথায়। বললেন, ‘‌আজকে দেশে হাসপাতালেও মানুষের জাতি, ধর্ম জিজ্ঞেস করে ভর্তি করা হচ্ছে। রামের জন্মভূমিতে বিজেপি এমন তান্ডব করেছে যে ঈশ্বরও তা নিয়ে উদ্বিগ্ন। এমনকি বিজেপি আজ ভগবানকেও জাতি–ধর্মে ভাগ করে দিচ্ছে। কেন্দ্রের ভুল নীতির জন্য আজ দেশে কৃষকরা আত্মহত্যা করছেন। মানুষের ভদ্রভাবে বেঁচে থাকাই আজ দায় হয়ে উঠেছে। উল্টে বড় শিল্পপতিদের ঋণ মকুব করে দিয়েছে মোদি সরকার। হিরে ব্যবসায়ীদের সুবিধার্থেই আমেদাবাদ–মুম্বই বুলেট ট্রেন তৈরি হয়েছে।’‌ 

জনপ্রিয়

Back To Top