আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ধর্মতলার মঞ্চ থেকে প্রাণনাশের হুমকি দিলেন দিলীপ ঘোষ। কিন্তু দিলীপ ঘোষ যে ইতিহাসটা ভাল করে জানেন না, প্রমাণ করে দিলেন এদিন তাও। কারণ, রুশ বিপ্লবের নেতৃত্ব ভ্লাদিমির ইলিচায় লেনিনের নামটাই তিনি উচ্চারণ করলেন ভুল। গোটা সভা জুড়ে বলে গেলেন ‘‌লেলিন’‌। এছাড়া, এদিন মঞ্চ থেকে একের পর এক হুমকি দিয়ে গেলেন দিলীপ। ছড়িয়ে ছিল নানা সাম্প্রদায়িক উষ্কানিও। 
বুধবার, ওই মঞ্চ থেকে প্রথম থেকেই সিপিএম ও তৃণমূলের বিরোধিতায় সরব হয়েছিলেন দিলীপ। মমতা ব্যানার্জিকে আক্রমণের পাশাপাশি এদিন মূর্তি ভাঙার প্রসঙ্গও তোলেন তিনি। মুখে মূর্তি ভাঙার বিষয়ে সমর্থন না থাকার কথা ঘোষণা করলেও এদিন তিনি বলেন, ‘‌পদ্মফুল ছিল বলেই এতদিন লেনিন দাঁড়িয়ে ছিলেন। ধর্মতলায় লেনিন, মার্কসের মূর্তি আছে কারণ তার পাশেই আছে পদ্মফুল। যতদিন পদ্মফুল থাকবে, ততদিন এই মূর্তি থাকবে, তারপরে আর থাকবে না।’‌ এককথায় ইতিহাস মুছে দেওয়া কথা ঘুরিয়ে জানিয়ে দিয়ে গেলেন দিলীপ ঘোষরা। এছাড়া, এদিন কর্মীদের উদ্দেশ্যে রাজ্য সভাপতি জানিয়ে দেন, আগামীকাল, অর্থাৎ বৃহস্পতিবার কেওড়াতলা মহাশ্মশানে শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের মূর্তিকে দুধ দিয়ে অভিষেক করবেন তাঁরা। সেই জন্য সকাল থেকেই ওই চত্ত্বরে বিজেপি সমর্থকদের জড়ো হওয়ার নির্দেশ দেন তিনি। এছাড়া, যাদবপুরের ছাত্রদেরও তিনি হুমকি দিয়ে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বাইরে এলে, চেহারা পাল্টে দেওয়া হবে’‌। এছাড়া, শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মূর্তি ভাঙার বিষয়েও এদিন দিলীপ জানান, ‘‌কেউ আর মূর্তি ভাঙার চেষ্টা করলে, সেটা তাঁর শেষ চেষ্টা হবে’‌। মানে ঘুরিয়ে প্রাণনাশের হুমকিও দিয়েছেন দিলীপ।  ‌  
এদিন বেশ কিছু সংখ্যায় বিজেপি সমর্থক নারী নিরাপত্তা সহ বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে আইন অমান্য কর্মসূচীতে জড়ো হয়। কিন্তু ইস্যু পাল্টে যায় আজকের সকালের ঘটনার পরেই। শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের মূর্তি ভাঙা নিয়ে শুরু হয় আন্দোলন। কিন্তু আইন অমান্য নিয়ে এদিনও বিশেষ কিছু করতে পারেনি বিজেপি সমর্থকরা। মমতা ব্যানার্জিকে নিয়ে অশ্লীল মন্তব্য, বামপন্থী সমর্থকদের ‘‌লেলিনের বাচ্চা’‌ বলে গালিগালাজ করা ছাড়া আর বিশেষ কিছুই ঘটেনি এদিনের আইন অমান্যর মধ্যে।     ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top