আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ লকডাউন উঠে গেছে আগেই। শুরু হয়েছে আনলক–১। এবার সেই পর্যায় থেকে আনলক–২–এর পর্যায়ে যেতে চলেছে দেশ। এই অবস্থায় ফের দেশবাসীর উদ্দেশে ভাষণ দিলেন মোদি। মনে করিয়ে দিলেন কিছু জরুরি কথা।
* করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমরা আনলক–২ পর্যায়ে প্রবেশ করতে যাচ্ছি। আবার এখন বর্ষাকাল। তাই এমনিই রোগভোগ বেশি। সে কারণেই আমাদের আরও সাবধানে থাকতে হবে। 
* কোভিড–যুদ্ধে অন্যান্য দেশের তুলনায় ভারতের অবস্থা এখনও অনেকটাই স্থিতিশীল। আমাদের দেশে মৃত্যুর হার নিয়ন্ত্রিত। সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত বাঁচিয়ে দিয়েছে।
* যাঁরা বিধিনিষেধ মানছেন না, তাঁদের এবার কড়াহাতে দমন করা হবে। দেশের নেতা হলেও ছাড় পাবেন না। ভারতের কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নন। 
* একটা বিষয় লক্ষ্য করা যাচ্ছে, যে ইদানীং অনেকেই আর কড়াভাবে বিধিনিষেধ মানছেন না। ঠিকভাবে হাত ধোওয়া, স্যানিটাইজার ব্যবহার, মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব রক্ষা— এসব নিয়মের তোয়াক্কা করছেন না। চিন্তার বিষয়। শৃঙ্খলারক্ষার দিকে আমাদের আরও নজর দিতে হবে। 
এর পর প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ রোজগার যোজনা নিয়েও মুখ খুলেছেন। জানালেন, শেষ ক’‌মাস কৃষকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি ১৮ হাজার কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে। পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য গরিব কল্যাণ রোজগার যোজনার ব্যবস্থা হয়েছে। ৮০ কোটি মানুষ প্রতি মাসে পাঁচ কেজি চাল, এক কেজি ডাল পেয়েছেন বিনামূল্যে। সরকার সব সময় চেষ্টা করছে, এই পরিস্থিতিতে কীভাবে সাধারণ মানুষের পাশে থাকা যায়। 
তবে এই রেশনের সাহায্য আগামী কয়েক মাসও দেবে কেন্দ্র। মোদি জানালেন, দীপাবলি, ছট পুজোর মতো উৎসব রয়েছে আগামী দিনে। তার কথা মাথায় রেখেই নভেম্বরের শেষ পর্যন্ত পাঁচ কেজি চাল, এক কেজি ডাল পাবেন ৮০ কোটি দেশবাসী। আর সারা দেশে একটা রেশন কার্ড যাতে চলে, সেই ব্যবস্থাই করছে সরকার বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী। এতে পরিযায়ী শ্রমিক এবং তাঁদের পরিবারের স্বার্থ সুরক্ষিত হবে।  

জনপ্রিয়

Back To Top