আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ রাজ্য সরকার পুষ্টি মাস উদযাপন করছে৷ অথচ সেই রাজ্যেই খেতে না পেয়ে একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যুর অভিযোগ উঠল৷ উত্তরপ্রদেশের কুশিনগরের ঘটনা৷ মা ও তাঁর দুই সন্তানের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে৷ খেতে না পেয়েই মৃত্যু হয়েছে একই পরিবারের তিনজনের বলে অভিযোগ উঠেছে৷ যদিও এই তত্ত্ব মানতে নারাজ যোগী আদিত্যনাথের সরকার৷ তাঁদের দাবি, ডায়ারিয়া ও খাদ্যে বিষক্রিয়ার কারণেই এই মৃত্যু৷ কিন্তু এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই অস্বস্তি বেড়ে গিয়েছে যোগীর বলে খবর।
মৃত গৃহবধূর নাম সঙ্গীতা৷ বয়স ৩০ বছর৷ অত্যন্ত গরীব পরিবার তাঁদের৷ স্থানীয় সূত্রে খবর, গত ৭ সেপ্টেম্বর মৃত্যু হয় সঙ্গীতা ও তাঁর আট বছরের ছেলে সুরজের৷ সঙ্গীতার স্বামী বীরেন্দ্র দিনমজুরের কাজ করেন৷ তাঁর কথায়, গত ৭ সেপ্টেম্বর মা ও ছেলে সকাল থেকে বমি করতে শুরু করে৷ অবস্থা খারাপ বুঝে সরকারি অ্যাম্বুলেন্সে করে তাঁদের হাসপাতালে নিয়ে যাই৷ অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে যাওয়ার সময়ই মৃত্যু হয় সঙ্গীতা ও সুরজের৷ দিন পাঁচেক পরে সঙ্গীতার দু’মাসের সন্তান গীতাও অসুস্থ হয়ে পড়ে৷ গ্রামের মহিলারাই দুধের শিশু গীতার খাবারের বন্দোবস্ত করেন৷ বিষয়টি স্থানীয় সমাজকর্মীদেরও তাঁরা জানান৷ গীতাকে নিউট্রিশন সেন্টারে নিয়ে যাওয়ার জন্যও অনুরোধ করেন স্থানীয়রা৷ কিন্তু কেউ সে কথা কানে তোলেননি বলে অভিযোগ৷ এরপরই গত সোমবার জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ওই শিশুকে৷ মঙ্গলবার সেখানেই মারা যায় সে৷
তবে দু’বেলা খাবার যে এই পরিবারের জুটত না সে কথা স্বীকার করেছেন বীরেন্দ্র৷ তিনি বলেন, ‘‌আমাদের ঘরে দানাটুকু নেই৷ আমার জবকার্ড রয়েছে৷ অথচ কাজ পাই না এক বছর হতে চলল৷’‌ গ্রাম প্রধান দীনেশ বর্মা বলেন, ‘‌গত মাসে এই পরিবার রেশন পেয়েছে৷ কিন্তু এই মাসে এখনও রেশন দেওয়া হয়নি৷ এই পরিবার যে অত্যন্ত গরীব তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই৷’‌ এই ঘটনায় মুখ পুড়েছে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

জনপ্রিয়

Back To Top