আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ জিডি বিড়লা স্কুলে শিশু পড়ুয়ার যৌন নির্যাতনের ঘটনার ছায়া এবার দক্ষিণ কলকাতার নামী মিশনারি স্কুল কারমেলে। অভিযোগ, দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে দীর্ঘদিন ধরে যৌন নির্যাতন করেছে সৌমেন রানা নামে ওই স্কুলের এক নাচের শিক্ষক। অভিভাবকদের দাবি, বারবারই নাচ শেখানোর অছিলায় ওই শিশুকে আলাদা করে ডেকে নিয়ে যৌন নির্যাতন করত অভিযুক্ত শিক্ষক। হুমকি দিত, নির্যাতনের কথা বাড়িতে জানালে তার বইখাতা আটকে রাখা হবে। তাকে স্কুল থেকেও বহিষ্কার করে দেওয়া হবে। অবশেষে বৃহস্পতিবার এই ঘটনার কথা জানাজানি হওয়ায়, শুক্রবার সকাল থেকে স্কুলে এসে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন অভিভাবকরা।

স্কুলে মোতায়েন করা হয়েছে বিরাট পুলিসবাহিনী। অভিভাবকদের অভিযোগ, উল্টে স্কুলের তরফে নাকি অভিভাবকদের কাছেই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে প্রমাণ চাওয়া হয়েছে। এক অভিভাবকের কথায়, ‘‌আমাকে বলা হয়েছে, আপনি প্রতিবাদ জানাতে এসেছেন কেন, আপনার মেয়ের সঙ্গে তো কিছু হয়নি!‌ নির্যাতিতা শিশুটিকে প্রশ্ন করা হয়েছে কেন তুমি মা–কে এসব কথা বলতে গেলে।’‌
যে শিক্ষকের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ, শুক্রবারও স্কুলে এসেছে সে। কিন্তু স্কুল তাকে আড়াল করছে বলে দাবি অভিভাবকদের। নির্যাতিতা শিশুটির সহপাঠীরা জানিয়েছে, প্রায়ই শারীরিক ভাবে ওই শিশুর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করতো অভিযুক্ত শিক্ষক।

চুম্বনও করতো। শেষ পর্যন্ত অবশ্য চাপে পড়ে আলোচনায় বসতে রাজি হয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। 'দুর্ভাগ্যজনক' ঘটনা যে ঘটেছে সেটাও মেনে নিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। অভিভাবকদের চাপে গ্রেপ্তার করা হয়েছে অভিযুক্ত শিক্ষককে। গ্রেপ্তার করার সময় সময় পুলিসের সঙ্গে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন অভিভাবকরা। মাথায় আঘাত পান টালিগঞ্জ থানার ওসি। এরপর স্কুল কর্তৃপক্ষ সাময়িক সাসপেন্ড করেছে অভিযুক্ত শিক্ষককে। যদিও ওই শিক্ষক স্কুলের অস্থায়ী কর্মী ছিল।এখনও স্কুলে যথেষ্ট উত্তেজনা রয়েছে। তবে বের করে আনা হয়েছে আটকে থাকা পড়ুয়াদের। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন শিশু সুরক্ষা কমিশনের সদস্যরা।

কমিশনের সদস্য এবং বিখ্যাত গায়ক সৌমিত্র জানান, 'যে ঘটনাটি ঘটেছে তা খুবই দুঃখজনক। আমরা পুরো ঘটনাটি আমরা শিশুটি এবং তাঁর পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলব। তার আগে কোনও মন্তব্য করব না। স্কুল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, শিশুটির যাতে কোনওরকম অসুবিধা না হয়, সেটা দেখবে তাঁরা। আমরা শিশুটির সঙ্গে কথা বলব। মা–বাবার থেকে শিশুটির বক্তব্য আমাদের কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।' 

 

 

 

 

 

অভিযুক্ত নাচের শিক্ষক সৌমেন রানা।

জনপ্রিয়

Back To Top