Narendra Modi: ‌আফগানভূম যেন সন্ত্রাসের উৎস না হয়ে যায়, G-20 বৈঠকে বার্তা মোদির

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ আফগানভূম যেন সন্ত্রাসের উৎস না হয়ে ওঠে। G-20 দেশগুলির ভার্চুয়াল বৈঠকে স্পষ্টভাবে জানালেন ভারতেপ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাঁর কথায়, এই সময় গোটা বিশ্বের উচিত ঐক্যবদ্ধভাবে আফগান নাগরিকদের পাশে থাকা। তালিবান শাসনেও যাতে আফগানভূমে নাগরিকদের কোনও অসুবিধা না হয়, তা নিশ্চিত করতে নিরন্তরভাবে তাঁদের পাশে থাকতে হবে গোটা বিশ্বকে।
আগস্টেই আফগানিস্তান দখল করেছে তালিবান। জেহাদিদের সরকারকে সমর্থনের পক্ষে সওয়াল করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এই পরিস্থিতিতে জি-২০ বৈঠকে আফগান সরকারকে স্বীকৃতি দেওয়া নিয়ে অবস্থান স্পষ্ট না করলেও, মোদি জানিয়ে দিলেন আফগানিস্তানের মাটি যাতে হিংসা এবং সন্ত্রাসের আতুড়ঘর না হয়ে যায়, তা নিশ্চিত করা আমাদের অবশ্য কর্তব্য। 
এটা ঘটনা আফগানিস্তানে তালিবান সরকার গঠনের পর পাকিস্তান যে আফগানভূম ব্যবহার করে ভারতের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হবে, সেটা পরিষ্কার। যদিও তালিবান আশ্বস্ত করেছে জঙ্গিদের সে দেশের মাটি ব্যবহার করতে দেবে না তারা। কিন্তু তাতে ভরসা রাখতে পারছে না ভারত–সহ বেশ কয়েকটি দেশ। সেকারণেই আফগানিস্তানকে সন্ত্রাসমুক্ত করার ডাক দিয়ে বিশ্ববাসীকে সতর্ক করে দিলেন মোদি। মঙ্গলবার G-20 দেশগুলির ভার্চুয়াল বৈঠকে মোদি বলেন, ‘‌আফগান মাটি যাতে সন্ত্রাস আর হিংসার উৎস না হয়ে যায়, সেটা আমাদেরই নিশ্চিত করতে হবে। দেশটিতে পরিবর্তন আনার জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। আফগান নাগরিকদের মানবিক সাহায্য চালিয়ে যেতে হবে।’‌ এর আগে রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকেও আফগানিস্তানের পরিস্থিতি নিয়ে সতর্ক করেছেন মোদি। ভারতের মূল লক্ষ্য যে সন্ত্রাসবাদ খতম করা, সেটা আরও একবার স্পষ্ট করে দিলেন মোদি। 
তবে আফগানিস্তানের সঙ্গে ভারতের বন্ধুত্ব দীর্ঘদিনের। প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই থেকে শুরু করে আশরফ গনির সময়কালে দু’দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও মজবুত হয়। অর্থনীতি হোক বা বাণিজ্যনীতি, কূটনীতি–সব বিষয়েই দু’দেশ পরস্পরের দিকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে একাধিকবার। কিন্তু তালিবান ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দিল্লির সঙ্গে কাবুলের সম্পর্কের একটা দূরত্ব তৈরি হতে শুরু করেছে।