আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ভোটের আগে চড়ছে পারদ। উত্তপ্ত জাতীয় থেকে রাজ্য রাজনীতি। বুধবার সকালে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশংকর প্রসাদ দাবি করেছিলেন, বাংলার সব বুথ অতি স্পর্শকাতর। সেই বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে নজর দিতে আবেদন করবে বিজেপি। পাশাপাশি, রবিশংকর বলেছিলেন, পশ্চিমবঙ্গের সংবাদমাধ্যমের নাকি একটুও স্বাধীনতা নেই। আর বিকেলেই পাল্টা সাংবাদিক সম্মেলন করে তাঁর বক্তব্যের জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তাঁর বক্তব্যে প্রথম থেকেই কেন্দ্রের সমালোচনা করলেন মমতা। পরিস্কার জানিয়ে দিলেন, বিজেপির পেশিশক্তির আস্ফালন তিনি বা তাঁর দল মানবে না। তিনি বলেন, ‘‌এ ‌রাজ্যে বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান একসঙ্গে পালিত হয়। আমরা গণতান্ত্রিক পরিকাঠামোয় বিশ্বাসী। আমাদের ভয় দেখিয়ে লাভ নেই। সবকিছুর একটা সীমা আছে, পেশিশক্তি আমাদের দেখাবেন না। ওরা ভাবছে আমাকে আটকাবে, কিন্তু কিছুতেই আটকাতে পারবে না।’‌ এরপরই কেন্দ্রকে পাল্টা প্রশ্ন করেন, ‘‌আইন–শৃঙ্খলা বজায় রাখা রাজ্যের দায়িত্ব। বাংলায় কোথাও কোনও অশান্তি নেই। তাহলে কেন বাংলাকে নিয়ে অতিস্পর্শকাতর বিজেপি?‌ অতিস্পর্শকাতর বুথের তালিকা তৈরি হল কীভাবে?‌
সমস্ত বুথকে অতিস্পর্শকাতর দাবি করার কারণই বা কী?‌’‌ এরপর তুলে আনেন ত্রিপুরার প্রসঙ্গও। বলেন, ‘‌এটা আসলে বাংলাকে অপমান করার চেষ্টা। ত্রিপুরার ক্ষেত্রে এসব কথা মনে ছিল না। সেখানে তো ৯৯ শতাংশ আসনে কোনও প্রতিদ্বন্দীতাই হয়নি। আর এদিকে, ভোটে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছিল তৃণমূল কর্মীদেরই।’‌ এরসঙ্গেই তিনি যোগ করেন, ‘‌ওদের একটা রাজনৈতিক দল বলেই মনে করি না। আসলে মোদি–অমিত শাহের বিরুদ্ধে লড়াই করছি বলে এভাবে আক্রমণ করা হচ্ছে। দেশ একটা গণতন্ত্র আছে। মোদিবাবু, আপনারা বিশ্রাম করুন। এরা যদি ক্ষমতায় আসে দেশের সংবিধানই পাল্টে দেবে। গোরক্ষার নামে কত মানুষ মরেছে?‌ আসলে বিজেপির নেতা–মন্ত্রীরা মানসিক রোগগ্রস্থ হয়ে গিয়েছে। এখন আবার সংবাদমাধ্যমের জন্যও অবজার্ভার নিয়োগ করতে বলছে। এরপর তো নির্বাচন কমিশনকে ভোট দিয়ে আসতে বলবে। সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব করতে চাইছে। চোরের মায়ের বড় গলা। বাংলাকে এভাবে অপমান করার জবাব পাবে। বাংলার মানুষ ভোটবাক্সেই এর জবাব দেবে। তৃণমূল সাত দফায় সাতে সাত পাবে।’‌ 
‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top