প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে একান্ত বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী-‌রাজ্যপাল, কী নিয়ে হল আলোচনা?‌

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ রাজভবনে গেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে একান্ত বৈঠক হয় মুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্যপালের মধ্যে। তবে কী বিষয়ে আলোচনা হল তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে বাড়ছে আগ্রহ। এদিন বিকেলে নবান্ন থেকে বেরিয়ে সোজা রাজভবনের উদ্দেশে রওনা দেয় মুখ্যমন্ত্রীর কনভয়। রাজভবনে গিয়ে দেখা করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে। তবে কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে তা স্পষ্ট নয়। সূত্রের খবর, এদিন একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা হয় রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির। তবে এদিন রাজভবনে যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী এবিষয়ে আগাম কোনও পরিকল্পনা ছিল না। হঠাৎই মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেন রাজভবনে যাওয়ার। রাজভবন সূত্রে খবর, রাজ্যের বিধান পরিষদ গঠন নিয়েই আলোচনা হয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এবং রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের মধ্যে।

এর পাশাপাশি একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে কথা হয় মুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্যপালের। বিধানসভায় পিএসি চেয়ারম্যান নিয়োগের বিষয়টিও নিয়েও আলোচনা হয় দু’‌জনের মধ্যে। তবে রাজ্যে বিধান পরিষদ গঠনের গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়েই মূলত বৈঠক হয়, এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। রাজ্যে বিধান পরিষদ গঠনের বিষয়ে ছাড়পত্র দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এ নিয়ে বিধানসভায় ভোটাবুটি হয়। আর সেই ভোটাভুটিতে বিধান পরিষদ গঠনের প্রস্তাব পাশ হয়ে যায়। তবে রাজ্যে বিধান পরিষদ গঠন হোক চাইছে না বিরোধী দল বিজেপি। একমাত্র আইএসএফ বিধায়ক নওসাদ সিদ্দিকিও বিধান পরিষদ গঠনের বিপক্ষে ভোট দেন। বিধান পরিষদ গঠনের প্রস্তাবের পক্ষে ভোট পড়ে ১৯৬ টি আর বিলের বিপক্ষে ভোট পড়ে ৬৯ টি। যদিও রাজ্যে বিধান পরিষদ সংক্রান্ত বিল এখনও আইনে পরিণত হয়নি। কারণ আইনে পরিণত হতে গেলে প্রস্তাবটি লোকসভায় যাবে। লোকসভায় প্রস্তাবটি পাশ হয়ে গেলে তা রাজ্যসভায় যাবে। সেখানেও পাশ হয়ে গেলে তা যাবে রাষ্ট্রপতির কাছে। রাষ্ট্রপতি স্বাক্ষর করলে তবে এই বিল আইনে পরিণত হবে। তবে এই বিল লোকসভায় আদৌ পাশ হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় থাকছেই। কারণ লোকসভায় বিজেপির সাংসদ সংখ্যা অনেক বেশি। তাই বিজেপি সাংসদরা এই বিলের পক্ষে সায় দেবেন কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়। 

আকর্ষনীয় খবর