Covid: উপসর্গ রয়েছে, বাড়িতেও সকলেই আক্রান্ত, তার পরেও আপনি নেগেটিভ!‌ কেন হয় এ রকম?‌

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ উপসর্গ রয়েছে।

বাড়িতে বাকি সব সদস্যই করোনা আক্রান্ত। আপনিও পরীক্ষা করালেন। কিন্তু রিপোর্ট এল নেগেটিভ। এদিকে তখন জ্বর, সর্দি, কাশি, সবই রয়েছে। কেন এল এ রকম রিপোর্ট?‌ সত্যিই কি তবে আপনার কোভিড হয়নি?‌ নাহ্‌, আপনার কোভিড হয়েছে। তার পরেও রিপোর্ট নেগেটিভ আসছে। এটাই হল কথা।
কেন এ রকম হয়, জানাচ্ছেন বিশেশজ্ঞরা।
• এর অন্যতম কারণ হতে পারে, আপনার নমুনা ঠিকঠাকভাবে নেওয়া হয়নি। জানিয়ে দিলেন ডা.‌ বিজয় দত্ত। তিনি বললেন, সঠিকভাবে নাক এবং গলা থেকে সোয়াব নিতে হবে। তার পর ২ থেকে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সেই সোয়াব সংরক্ষণ করে পরীক্ষাগারে পাঠাতে হবে। তার পরেই সঠিক রিপোর্ট আসবে। মাইক্রোবায়োলজিস্ট ড.‌ আল্পনা রাজদান বললেন, নমুনায় যথেষ্ট ভাইরাল পার্টিক্‌ল না থাকলে রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। 
• চিকিৎসকরা বলছেন, কখন পরীক্ষা করানো হচ্ছে, সেটাও গুরুত্বপূর্ণ। ভাইরাস শরীরে ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে বংশবৃদ্ধি করে ফেলে না। উপসর্গও দেখা যায় না। একটু সময় লাগে। সেই সময়ের আগে পরীক্ষা করালে কোনও লাভ নেই। ওমিক্রনের ক্ষেত্রে শরীরে প্রবেশের পর তিন থেকে ছ’‌দিন তার ক্ষেত্রে কার্যকর সময়। ওই সময়ের আগে বা পরে পরীক্ষা হলে রিপোর্ট নেগেটিভ আসবে। 

PM Modi: ভাষণে ‘‌বেটি বাঁচাও’‌ বলতে গিয়ে এ কী বললেন প্রধানমন্ত্রী মোদি?‌ তুমুল বিতর্ক
• ওমিক্রনের ক্ষেত্রে ৫৪ থেকে ৭২ শতাংশ রোগীর শরীরে কোনও উপসর্গ দেখা যায় না। তাই বেশিরভার রোগীরা বুঝতেই পারেন না যে কবে সংক্রামিত হয়েছেন। শেষে শরীরটা খারাপ লাগলে হয়তো পরীক্ষা করান। কিন্তু ততদিনে পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ চলে আসে। 
• ইতিমধ্যে করোনার নতুন প্রজাতি ওমিক্রনেরও অনেকবার বিয়োজন হয়ে গিয়েছেন। এর মধ্যে দু’‌টি নতুন প্রজাতি হল BA.1 এবং BA.2। এই BA.1 প্রজাতিতে স্পাইক জিনই ডিলিট হয়ে গিয়েছে। ফলে ওমিক্রনের এই প্রজাতি আরটিপিসিআর পরীক্ষায় ধরা দেয় না। 
• অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় বেশিরভাগ সময়ই ধরা পড়ে না নমুনায় থাকা ভাইরাস। ফলে রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। 

আকর্ষণীয় খবর