আজকালের প্রতিবেদন‌,দিল্লি:  অবশেষে সমকাম বৈধতা পাবে ভারতে?‌ বুধবার তেমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র। তিনি বলেছেন, ‘‌সমকামের ওপর দেড়শো বছরের পুরনো নিষেধাজ্ঞা হয়তো তাড়াতাড়ি উঠে যাবে। সওয়াল–‌জবাবের ওপর ভিত্তি করে আমরা নির্দেশিকা দিতে চাইছি। দু’‌‌জন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ যদি ‘‌অস্বাভাবিক যৌনতায়’‌ লিপ্ত হন, তাহলেও তা কোনও অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে না।’‌ 
সংবিধানের ৩৭৭ ধারায় সমকামকে অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। এই ধারা বাতিল করার দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে ৫ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চে শুনানি চলছে। সাংবিধানিক বেঞ্চের প্রধান দেশের প্রধান বিচারপতি। তাঁর এই পর্যবেক্ষণ থেকে আইনজীবীরা মনে করছেন, এদেশে সমকাম ‘‌অপরাধ’‌ বলে বিবেচিত হওয়ার দিন শেষ হয়ে এসেছে। এদিকে, এই মামলায় বুধবারই নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করেছে কেন্দ্র। অতীতে সমকাম নিয়ে কট্টর মনোভাব দেখালেও এদিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক একটি হলফনামা পেশ করে জানিয়েছে, ‘‌সম্মতিপূর্বক সমকাম’‌ নিয়ে তাদের কোনও অবস্থান নেই। অর্থাৎ, বিষয়টি আদালতের ওপরেই ছেড়ে দিয়েছে কেন্দ্র। 
অতিরিক্ত সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা আদালতে বলেন, ‘‌সমকাম বিয়ে আইন স্বীকৃত হলে যে কেউ তার ভাই অথবা বোনকে বিয়ে করার ইচ্ছা প্রকাশ করতে পারে। ফলে, আমরা বিষয়টি আদালতের বুদ্ধিমত্তার ওপর ছেড়ে দিচ্ছি।’ মেহতাকে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘‌আমাদের কাছে সেটা বিচার্য বিষয় নয়। অলীক কল্পনার ওপর ভিত্তি করে আদালত চলবে না।’‌ মঙ্গলবার থেকে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারা বাতিলের আর্জিতে একগুচ্ছ আবেদনের শুনানি চলছে। সাংবিধানিক বেঞ্চে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র ছাড়াও রয়েছেন বিচারপতি এ এম খানউইলকর, আর এফ নরিম্যান, ইন্দু মালহোত্রা এবং ডি ওয়াই চন্দ্রচুড়। এদিন কেন্দ্রীয় সরকারের বক্তব্য জানার পর প্রধান বিচারপতি বলেছেন, ‘‌অর্থাৎ এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকার আর লড়তে চাইছে না।’‌ 
আবেদনকারীদের আইনজীবী মেনকা গুরুস্বামী আদালতে আজ বলেছেন, ‘‌ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারাটি সংবিধানের ১৫, ১৯ ও ২১ নং অনুচ্ছেদের পরিপন্থী। সংবিধানের ২১ নং ধারায় দু’‌‌জন নাগরিকের যৌথতার অধিকারকে স্বীকৃতি দেওয়া হলেও ৩৭৭ ধারায় তা লঙ্ঘিত হচ্ছে।’‌‌‌ ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top