আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌এ বছর কুম্ভ মেলায় প্রথম ‘‌কিন্নর আখাড়া’‌র দেখা মিলবে। এই আখাড়ার প্রধান পুরোহিত জানান, সমাজের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে রূপান্তরকামীদের অংশগ্রহণ বাড়াতে এই পদক্ষেপ করা হয়েছে। 
আখাড়ার পুরোহিত লক্ষ্মী নারায়ণ ত্রিপাঠি জানান, যৌনতাকে অতিক্রম করে এই আখাড়া তৈরি করা হয়েছে এবং কুম্ভতে যোগ দিতে পেরে খুব রোমাঞ্চিত অনুভব করছেন তিনি। লক্ষ্মী লারায়ণ ত্রিপাঠি বলেন, ‘সমাজের মূলস্রোত যে আমাদের গ্রহণ করেছে এখানে যোগ দিয়ে সেটা বুঝতে পারলাম। সৃষ্টিকর্তা আমাদের মধ্যেই আছেন এবং আমরা যখন মারা যাব তখন তাঁর কাছেই ফিরে যাব। আমাদের দরজা সকলের জন্য খোলা আছে।

’‌ তিনি জানান, রক্ষণশীল সমাজ যে তাঁদের তৃতীয় লিঙ্গ হিসাবে গ্রহণ করেছেন এটা সত্যিই অভাবনীয়। তবে লড়াই এখনও চলছে বলে জানান লক্ষ্মী। তিনি বলেন, ‘আমাদের সম্প্রদায় এখনও মূলস্রোতের শিল্প, সংস্কৃতি ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা এখানে এসেছি শুধু ধর্মমত নির্বিশেষে, রঙ ও অতীতকে না দেখে সকলকে নিঃস্বার্থভাবে ভালোবাসতে।’‌ কিন্নর আখাড়ার সম্পাদক পবিত্র জানান, প্রয়াগরাজে কুম্ভ মেলায় অংশ নেওয়ার জন্য‌ গত দু’‌বছর ধরে প্রস্তুতি চলছিল। পবিত্র বলেন, ‘‌আমরা অধীর আগ্রহে কুম্ভের জন্য অপেক্ষা করেছিলাম। এখন সেখানে পৌঁছেও গিয়েছি।

সাধারণ মানুষ ও তীর্থযাত্রীরা খুবই সহায় আমাদের প্রতি। আমাদের জন্য প্রত্যেকের চোখে ভালোবাসা ও গ্রহণযোগ্যতা দেখে খুব ভাল অনুভূতি হচ্ছে।’‌
যদিও প্রথমদিকে এই আখাড়াকে অনেক বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছিল। পবিত্র জানান, যখনই কোনও ভাল উদ্যোগ নেওয়া হয় কিছু মানুষ বিরোদীতা করেন। কিন্নর আখাড়ার নাম নিয়ে অন্য কিছুর জন্য প্রতিবাদ করছে মানুষ। কিন্তু তাঁরা সফলতার সঙ্গে সেই প্রতিবন্ধকতা কাটাতে পেরেছেন। ১৪ জানুয়ারি থেকে প্রয়াগরাজের ত্রিবেণী সঙ্গমে শুরু হবে কুম্ভ মেলা। যা চলবে ৩ মার্চ পর্যন্ত। হাজারেরও বেশি পুর্ণ্যযাত্রী এই কুম্ভ মেলায় অংশ নেবেন বলে জানা গিয়েছে।               

 

 


 

জনপ্রিয়

Back To Top