আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ এবার এনআরসি’‌র পক্ষে আরও জোর সওয়াল করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। আর তা নিয়ে জোর বিতর্ক শুরু হয়েছে। ২০২৪ সালের মধ‍্যেই গোটা দেশজুড়ে এনআরসি লাগু করা হবে। আর প্রত্যেক অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের দেশের বাইরে ছুঁড়ে ফেলা হবে। পরবর্তী লোকসভা নির্বাচনের আগেই তা হবে বলে ঝাড়খণ্ড নির্বাচনের প্রচারে হুঙ্কার ছাড়লেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এই এনআরসি’‌র আতঙ্কে বহু মানুষ আত্মহত্যা করছে। দেশজুড়ে আতঙ্কের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে। তার মধ্যেই ফের আতঙ্ক আরও বাড়িয়ে দিলেন দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। 
ঠিক কী বলেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী?‌ ঝাড়খণ্ডের জনসভায় অমিত শাহ বলেন, ‘‌আমি আপনাদের আশ্বাস দিচ্ছি ২০২৪ সালের আগে গোটা দেশে এনআরসি লাগু হবে। আর দেশ থেকে সমস্ত অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকে বহিষ্কার করা হবে।’‌ বিরোধীরা প্রত্যেকেই এই এনআরসি’‌র নামে প্রহসন মানতে রাজি নন। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি সবার আগে এই বিধ্বংসী সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন। তারপর সব রাজনৈতিক দল তাঁর দেখানো পথেই সোচ্চার হয়ে ওঠেন। তাতে বেশ বিপাকে পড়ে যায় কেন্দ্রের এনডিএ সরকার। তারপরও এই হুঙ্কার মানুষকে ভিটেমাটি ছাড়া করতেই বলে অনেকে মনে করছেন।
কংগ্রেসও এই নিয়ে সংসদের ভেতরে–বাইরে সোচ্চার হয়ে উঠেছে। রাহুল গান্ধী এই নিয়ে তীব্র আক্রমণ করেছেন কেন্দ্রীয় সরকারকে। তার প্রেক্ষিতে এদিন সরাসরি রাহুল গান্ধীকে কড়া ভাষায় আক্রমণ শানিয়েছেন অমিত শাহ।
কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, ‘‌এই যে রাহুল বাবা সবসময় বলে এনআরসি কেন করা হচ্ছে? অনুপ্রবেশকারীদের তাড়ানো হচ্ছে কেন? কী খাবে? কোথায় যাবে? এতো প্রশ্ন কেন, আপনার কি খুড়তুতো ভাই হন কেউ? ২০২৪ সালের আগে সমস্ত অনুপ্রবেশকারীদের দেশ থেকে তাড়াবে বিজেপি সরকার।’‌ 
উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে রাজ‍্যসভায় স্পষ্টভাবে অমিত শাহ জানিয়ে দিয়েছিলেন গোটা দেশে‌ এনআরসি কার্যকর করা হবে। এমনকী সদ্য এনআরসি লাগু হওয়া অসমেও ফের এনআরসি কার্যকর করা হবে। আর এবার দেশ থেকে ছুঁড়ে ফেলার হুঙ্কারে আতঙ্কে ভুগছে মানুষ। 

জনপ্রিয়

Back To Top