আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ তিনি দল ছেড়েছিলেন বাবার অনেক পরে। কিন্তু দলে ফের যোগ দিলেন বাবার সঙ্গেই। শুক্রবার তৃণমূল ভবনে মমতা ব্যানার্জি, অভিষেকের উপস্থিতিতে তৃণমূলে ঘর–ওয়াপসি করলেন মুকুল রায়। সঙ্গে ফিরে এলেন ছেলে শুভ্রাংশুও। এবার প্রশ্ন উঠছে, ঠিক কী পদ দেওয়া হবে মুকুল–পুত্রকে?‌
বীজপুরের বিধায়ক ছিলেন শুভ্রাংশু। কিন্তু ২০২১ সালে সেই বীজপুরেই হেরে গেছেন তিনি। নিন্দুকরা বলছেন, এর নেপথ্যে রয়েছেন আর এক তৃণমূলত্যাগী অর্জুন সিং। এই বিজেপি সাংসদের হাত না থাকলে ওই কেন্দ্রে শুভ্রাংশুকে হারানো কঠিন। বরাবর মুকুল বিরোধী অর্জুন। সেই বদলাই নাকি এই নির্বাচনে নিয়েছেন বলে মত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।
তাহলে শুভ্রাংশুর হাতে কী আসতে চলেছে?‌ অনেকে মনে করছেন, মুকুল ফের তৃণমূলের সংগঠনটাই দেখবেন। জাতীয় স্তরে। ফলে বিধায়ক পদ ছেড়ে দিতে পারেন তিনি। কৃষ্ণনগর উত্তরে তাঁর আসনে লড়তে পারেন ছেলে শুভ্রাংশু। সেক্ষেত্রে তাঁকে রাজ্যের মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রী করা হতে পারে। 
নয়তো অনেকে মনে করছেন, তৃণমূলের যুব সংগঠনে বড় দায়িত্ব পেতে পারেন শুভ্রাংশু। রাজ্য যুব সভাপতির দায়িত্ব ছেড়ে সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এক সময়ে এই পদে ছিলেন মুকুল। অভিষেকের জায়গায় যুবর দায়িত্বে এসেছেন অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ। এবার সায়মীর পাশাপাশি দায়িত্ব সামলাতে পারেন শুভ্রাংশুও। তবে এই নিয়ে দলের তরফে কিছুই বলা হয়নি। এক নেতার কথায়, সব বিষয়ে সর্বশেষ সিদ্ধান্ত নেবেন মমতাই। 
 
ছবি:‌ ফেসবুক থেকে

জনপ্রিয়

Back To Top