Health Department: রাজ্যে বাড়ছে অযৌক্তিক সিজারের সংখ্যা! প্রসূতি মৃত্যু নিয়ে উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্যভবন, তৈরি কমিটি

আজকাল ওয়েবডেস্ক: রাজ্যে ক্রমশই বাড়ছে সিজারের সংখ্যা।

স্বাভাবিক প্রসবের হার দিনে দিনে কমছে। কেন এখনও হারে রাশ টানা যাচ্ছে না এক্ল্যামসিয়া অর্থাৎ মাত্রাতিরিক্ত প্রসবোত্তর রক্তক্ষরণের মতো সমস্যা? এই নিয়েই উত্তর খুঁজতে এবার মরিয়া রাজ্যের স্বাস্থ্যদপ্তর। পশ্চিমবঙ্গে প্রসূতি মৃত্যু বেড়ে চলায় উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্যভবন। আর তার জন্যই সম্প্রতি তৈরি করা হয়েছে ম্যাটারনাল ডেথ রিভিউ (এমডিআর) কমিটি।

এই নিয়েই এবার বৈঠক ডাকা হয়েছে মঙ্গলবার। স্বাস্থ্যসচিব নারায়ণস্বরূপ নিগমের তত্ত্বাবধানে এই কমিটির প্রথম বৈঠক হতে চলেছে। ওই বৈঠকে থাকবেন সব জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ও সরকারি হাসপাতালের সুপাররা। স্বাস্থ্যসচিবের নেতৃত্বাধীন এমডিআর কমিটির ১৬ জন সদস্যও এই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন। প্রসূতি মৃত্যুর হার কমাতে কী কী করণীয়, তা নিয়ে এই বৈঠকে আলোচনা হতে পারে।

আরও পড়ুন: কলকাতা ৪০.৯! দক্ষিণে তো বটেই, উত্তরবঙ্গেও তাপপ্রবাহের সতর্কতা, বৃষ্টি কবে হবে?

এক অধিকর্তা এই নিয়ে বলেন, রাজ্য ক্রমশই সিজারের সংখ্যা বাড়ছে। সেই অনুপাতে বাড়েনি যথাযথ সময়ে প্রাতিষ্ঠানিক ও স্বাভাবিক প্রসবের হার। এদিকে সমস্ত প্রসূতিকে গর্ভাবস্থাকালীন চেক-আপের আওতায় আনা যায়নি। ফলে ধরা পড়ছে না প্রসূতিদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত অনেক জটিলতা। যার জেরে প্রসূতি মৃত্যু ঘটছে‌। সম্প্রতি প্রসূতি মৃত্যুর হার রাজ্যে বেড়ে যাওয়া সংক্রান্ত একটি রিপোর্ট কেন্দ্রীয় সরকার প্রকাশ করে। যা নিয়ে আলোচনা হয় স্বাস্থ্যভবনে আয়োজিত ত্রৈমাসিক পর্যালোচনা বৈঠকে। সেখানেই স্বাস্থ্যদপ্তরের পদস্থ কর্তারা জেলাস্তরের স্বাস্থ্য আধিকারিকদের মহিলাদের গর্ভাবস্থাকালীন স্বাস্থ্য সুরক্ষিত করার নির্দেশ দেন। তারপরেই গঠিত হয় এমডিআর কমিটি।

কেন্দ্রের প্রকাশ করার রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, এরাজ্যে ম্যাটারনাল মর্টালিটি রেশিও বা এমএমার রেট যেখানে ২০১৬-১৮ সালে ছিল ৯৮, সেটাই ২০১৭-১৯ সালে বেড়ে ১০৯ হয়ে গিয়েছে। আর এই সূচক চিন্তায় ফেলেছে এই রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তরের অধিকর্তাদের। আর এরপরই নড়েচড়ে বসল রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর।

আকর্ষণীয় খবর