আজকাল ওয়েবডেস্ক:  আন্তর্জাতিক নারী দিবসে ঝোড়ো প্রচার শুরু করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। এই দিবস পালন করতে গিয়ে কেন্দ্রকে সরাসরি বিঁধলেন তিনি। এদিন টুইটারে লিখলেন যে, লোকসভায় তৃণমূল কংগ্রেসের ৪১% মহিলা প্রার্থী রয়েছেন, রাজ্য সভায় রয়েছেন ৩১% মহিলা প্রার্থী আর স্থানীয় নির্বাচনগুলিতে নির্বাচিত  প্রতিনিধিদের হার ৫০% এর উপর। অন্যদিকে ২০১১ সাল থেকে স্বাস্থ্যসাথী কার্ডে পরিবারের গৃহকর্ত্রী মহিলা যিনি রয়েছেন, তাঁর নামেই কার্ড ইস্যু করা হয়েছে। ৬ লাখের উপরে এস.এইচ.জি গ্রুপ গঠন করা হয়েছে গোটা পশ্চিম বাংলা জুড়ে,  যেখানে ৯০% এরও বেশি মহিলা কর্ম সংস্থানের পথ খুঁজে পেয়েছেন। পাশাপাশি টুইটবার্তায় এদিন তিনি গোটা দুনিয়া জুড়ে মহিলাদের অভিনন্দিত করেছেন। 

একদিকে যখন আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিনটিকে ভোটপ্রচারের অন্যতম হাতিয়ার করলেন মমতা ব্যানার্জি, এই বিষয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না বিজেপির নেতা-নেত্রীরা। দিলীপ ঘোষ বললেন, গত ১০ বছরে কোনও কাজই করেনি তৃণমূল কংগ্রেস, মিছিলের নাম করে কেবলমাত্র শারীরিক কসরত করে চলেছেন মমতা ব্যানার্জি।  যদিও আর মাত্র কয়েকদিনের অপেক্ষা, তার পরই বিরোধী আসনে চলে যাবেন তৃণমুলের নেতা নেত্রীরা। তখন আন্দোলন করা ছাড়া আর কোনও পথ খোলা থাকবে না বলে মনে করছেন দিলীপ ঘোষ।

অন্যদিকে মহিলা নেত্রী লকেট চ্যাটার্জিও কটাক্ষ করে বললেন, 'ভোটের মুখে বাংলার মেয়ে আখ্যা দিয়ে প্রচার করা হচ্ছে, এতে করে বাংলার মেয়েদের অসন্মান করা হচ্ছে'। এদিন তিনি আরও বললেন, 'মহিলারা অত্যাচারিত হলে রাজ্য সরকার কোনও খোঁজ নেয় না, বহু মহিলা আজও নিখোঁজ '। একদিকে মমতা ব্যানার্জি যখন কেন্দ্রের সরকারকে দোষ দিয়ে বলছেন যে, গোটা দেশে মহিলাদের অধিকার এখনও সুরক্ষিত নয়, অন্যদিকে পাল্টা হিসেবে দিলীপ ঘোষের বক্তব্য, গোটা দেশে মহিলাদের সামনে রেখেই দেশকে এগিয়ে নিয়ে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী, মহিলাদের কোনও লড়াই, আন্দোলন করতে হয়না। 

একদিকে যখন তৃণমূল নিজের ঘরের মেয়েকে সামনে রেখে ভোট প্রচার শুরু করেছে, সেই ঘরের মেয়েকে আক্রমণ করলেন বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ। এই আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে চড়ছে রাজ্য রাজনীতির পারদ এবং তা থেকে বাদ গেল না আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিনটিও।

জনপ্রিয়

Back To Top