আজকালের প্রতিবেদন- আগামিদিনে রাজ্যে নতুন করে যে বিদ্যুৎ প্রকল্পগুলি গড়ে উঠবে সেগুলি হবে ‘‌সুপারক্রিটিক্যাল প্ল্যান্ট’‌। যেখান থেকে কার্বন বা অন্যান্য ক্ষতিকর পদার্থ খুব কম পরিমাণে নিঃসরণ হবে। দূষণ রুখতেই এই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রাজ্যের বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। সোমবার পার্ক সার্কাস ময়দানে বেঙ্গল ন্যাশনাল চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (‌বিএনসিসিআই)‌ আয়োজিত ৩২তম ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইন্ডিয়া ট্রেড ফেয়ারের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এসে একথা জানিয়েছেন তিনি। সাগরদিঘিতে যে প্রকল্পটি গড়ে উঠছে তা এই প্রযুক্তিতে গড়ে তোলা হচ্ছে। যেখানে প্রতিদিন ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। কোলাঘাট বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রে এই প্রযুক্তির ব্যবহার হচ্ছে। এদিন বিদ্যুৎমন্ত্রী বলেন, রাজ্যে বিদ্যুৎ উদ্বৃত্ত। বিদ্যুৎ সংযোগ চাইলেই দেওয়া হচ্ছে। বিদ্যুৎ–সহ এরাজ্যে শিল্পের জন্য সমস্ত প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো আছে। বিএনসিসিআইকে আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এরাজ্যে যাতে শিল্প আরও গড়ে ওঠে সেদিকে নজর দিতে হবে। সফল করতে হবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির স্বপ্ন। এদিন রাজ্যের নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী শশী পঁাজা বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির নেতৃত্বে এরাজ্য ক্ষুদ্র, ছোট এবং মাঝারি শিল্পে এগিয়ে চলেছে। রাজ্যে আরও বিনিয়োগের জন্য শিল্পপতিদের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। অনুষ্ঠানে বিএনসিসিআইয়ের সভাপতি ড.‌ অর্পণ মিত্র, অধিকর্তা ঋত্বিক দাস ছাড়াও ছিলেন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত অন্য ব্যক্তিরা। ২১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া এই মেলা চলবে ১ জানুয়ারি পর্যন্ত। মেলায় যোগ দেওয়া ১০০টি স্টলের মধ্যে থাইল্যান্ড, চীন এবং বাংলাদেশ–সহ ২০টি বিদেশি সংস্থা আছে। সহযোগিতার জন্য এদিন মেলায় সিস্টার নিবেদিতা ইউনিভার্সিটি–সহ যোগদানকারী অন্যান্য সংস্থাকে সম্মানিত করা হয়। ‌

সোমবার পার্ক সার্কাস ময়দানে বেঙ্গল ন্যাশনাল চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (‌বিএনসিসিআই)‌ আয়োজিত ৩২তম ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইন্ডিয়া ট্রেড ফেয়ারের অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়, নারী ও শিশুকল্যাণমন্ত্রী শশী পঁাজা, ‌বিএনসিসিআই সভাপতি ড.‌ অর্পণ মিত্র, অধিকর্তা ঋত্বিক দাস।‌

জনপ্রিয়

Back To Top