প্রিয়দর্শী বন্দ্যোপাধ্যায়, উলুবেড়িয়া: বিধানসভা ভোটেও উলুবেড়িয়ায় জয়ের ধারা বজায় রাখতে এখন থেকেই মানুষকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করছে তৃণমূল। এবারের লোকসভা ভোটে উলুবেড়িয়া কেন্দ্রের অধীন ৭টি বিধানসভা কেন্দ্রেই বিপুল ভোটে এগিয়ে ছিল তৃণমূল। উলুবেড়িয়া থেকে এবার তৃণমূলের সাজদা আহমেদ দুই লক্ষেরও বেশি ভোটে জিতেছেন। এই জয়ের ব্যবধান শুধু ধরে রাখাই নয়, আরও বাড়াতে বদ্ধপরিকর তৃণমূল। তাই এখন থেকেই জোরকদমে সংগঠনকে আরও মজবুত করার পাশাপাশি উন্নয়নের কাজকেও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে।
সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে সঙ্গে নিয়ে উন্নয়নের এই কাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। দলমত নির্বিশেষে কোনও রং না দেখে যাতে সবাই এই উন্নয়নের সুবিধা পান, সেই দিকে বিশেষ নজর দেওয়া হচ্ছে। আর সেই কারণেই উলুবেড়িয়ার করাতবেড়িয়া এলাকার প্রায় ৫০০ জন বিজেপি নেতা–কর্মী ও সমর্থক তৃণমূলে যোগ দিলেন। উত্তর হাওড়ার বিধায়ক তথা মন্ত্রী নির্মল মাজি সোমবার বিকেলে তঁাদের হাতে তৃণমূলের পতাকা তুলে দিলেন। তঁাদের মধ্যে রয়েছেন উলুবেড়িয়া ২ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য তথা বিজেপি নেতা মৃণাল মাইতি ও বাসুদেবপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপি সদস্য জাহির আব্বাস–সহ আরও অনেকে। এই প্রসঙ্গে মন্ত্রী নির্মল মাজি বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির নেতৃত্বে এই এলাকায়ও উন্নয়নের যে কর্মযজ্ঞ চলছে, তাতে নিজেদের শামিল করতে বিরোধী দলের অনেকেই তৃণমূলে যোগ দিলেন। বিধানসভা ভোটের আগে এরকম আরও অনেকে তৃণমূলে যোগ দেবেন। বিধানসভা ভিত্তিক জয়ের মার্জিন বিধানসভা ভোটে আরও বাড়বে। রাজ্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের সমর্থন যে তৃণমূলের পক্ষেই রয়েছে, এই ঘটনায় আরও একবার প্রমাণিত হল।’
তৃণমূলে যোগ দিয়ে পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য মৃণাল মাইতি বলেন, ‘এলাকার উন্নয়নের কাজকে আরও ত্বরান্বিত করাই এখন আমাদের লক্ষ্য। বিজেপি মানুষকে কীভাবে ভঁাওতা দিয়েছে, সে কথাও আমরা সকলের সামনে তুলে ধরব।’ এই ঘটনায় উৎফুল্ল এলাকার তৃণমূল কর্মী–সমর্থকরা বলছেন, ‘‌এতে আমাদের মনোবল বাড়বে। সেইসঙ্গে বিজেপি কীভাবে অপপ্রচার চালিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চাইছে, সেটাও মানুষের কাছে স্পষ্ট হবে।’‌ যুব তৃণমূলের হাওড়া জেলা (গ্রামীণ) সভাপতি সুকান্ত পাল বলেন, ‘উলুবেড়িয়া উত্তর ছাড়াও জেলার গ্রামীণ এলাকার বহু অঞ্চলে বিজেপি থেকে অনেকে তৃণমূল যোগ দিতে চাইছেন। আগামী কিছুদিনের মধ্যেই এরকম অনেকে বিরোধী দল তৃণমূল যোগ দেবেন।’                                ছবি: সুপ্রতিম মজুমদার

জনপ্রিয়

Back To Top