যজ্ঞেশ্বর জানা,দিঘা: গত সফরে এসে সম্প্রীতি নগর খুঁজে পেয়েছিলেন। যেখানে নেই কোনও বাধা–ব্যবধান। এবার এসে খুঁজে নিলেন সৈকতের জগন্নাথধাম। আর সমুদ্র লাগোয়া সেই জগন্নাথ মন্দিরকে ঘিরে নয়া তীর্থক্ষেত্র গড়ে তোলার বার্তাও দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বিজেপি–র অকাল এবং অশুভ রথযাত্রাকে ঘিরে যখন রাজ্য–জাতীয় রাজনীতি উত্তাল, ঠিক সেই মুহূর্তে মমতার এমন ঘোষণা যেন আক্ষরিক অর্থে পরমপ্রাপ্তি গোটা রাজ্যবাসীর। 
এতদিন কাছের দিঘায় একাধিকবার এসে ফিরে গেছেন বহু মানুষ। কিন্তু ক’‌জনের খেয়ালে আছে ওল্ড দিঘা সৈকতে দিঘা থানারই এক্কেবারে সামনে সৈকতের ছোট্ট জগন্নাথ মন্দিরটির কথা। কিন্তু স্থানীয়দের কাছে বেশ পরিচিত মন্দিরটি। পর্যটন বিকাশে এবার সেই ছোট মন্দির এবং সংলগ্ন জগন্নাথঘাটকে ঘিরে পর্যটন বিকাশের কথা জানালেন মমতা। বৃহস্পতিবার বিকেলে দিঘার প্রশাসনিক বৈঠকে দিঘাকে পরিষ্কার–পরিচ্ছন্ন রাখার আইনি প্রয়োগের কড়া বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী সৈকতের পর্যটনকে আরও আকর্ষণীয় করতে জগন্নাথ মন্দির নির্মাণের কথা ঘোষণা করেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‌মানুষ যখন পুরী যায় তখন সমুদ্র দেখার পাশাপাশি জগন্নাথ মন্দিরে পুজো দেয়। দিঘার জগন্নাথ ঘাটে জগন্নাথ দেবের ছোট মন্দির রয়েছে। ওই মন্দিরকে বড় করে তৈরি করতে হবে। যাতে ওই জায়গাও পর্যটকদের কাজে আকর্ষণীয় হয়।’‌
বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন পর্যটন দপ্তরের মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন। তঁাকে পাঠিয়েই মুখ্যমন্ত্রী বুধবার বিকেলে খবরাখবর নিয়েছিলেন ছোট জগন্নাথ মন্দিরটির। সেই সুপরিকল্পনা যা এদিন ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘‌যখনই কোনও পর্যটনকেন্দ্র গড়ে ওঠে, তখন সেটাকে কেন্দ্র করে কিছু তীর্থক্ষেত্র গড়ে ওঠে। যেমন কপিলমুনির আশ্রম ঘিরে গঙ্গাসাগর গড়ে উঠেছে। আমরা গঙ্গাসাগরকে সুন্দর করে উন্নয়ন করেছি, যা গত ৬০ বছরে কেউ করেনি। আগে ওই জায়গায় একজনও থাকতে পারত না। এখন সেখানে হাজার হাজার লোক থাকতে পারে। আমরা একইভাবে তারকেশ্বর, তারাপীঠ, দক্ষিণেশ্বরকে সাজিয়েছি। একইভাবে মুসলিমদের বিভিন্ন ধর্মস্থানের পরিকাঠামো উন্নয়ন ও সৌন্দর্যায়নের কাজ করা হয়েছে।’‌ দিঘার শঙ্করপুর হোটেল অ্যাসোসিয়েশনের তরফে এদিন মুখ্যমন্ত্রীকে বলা হয়, দিঘায় এখন প্রচুর বিদেশি আসছেন। অথচ এখানে মানি ট্রান্সফারের ব্যবস্থা নেই। তখন মুখ্যমন্ত্রী বিষয়টির সমাধানে বলেন, ‘‌কেন্দ্র সরকারের সঙ্গে কথা বলব। লিড ডিস্ট্রিক্ট ব্যাঙ্ক ম্যানেজারকে বলছি এই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা যায় কিনা দেখুন।’‌

দিঘায় প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী। ছবি: প্রতিবেদক

জনপ্রিয়

Back To Top