আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মমতা ব্যানার্জি, দিলীপ ঘোষ, রাহুল সিনহা। তালিকা ক্রমেই দীর্ঘ হচ্ছে। এবার এই তালিকায় নাম জুড়ল তৃণমূল নেত্রী সুজাতা মণ্ডল এবং বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুর। অর্থাৎ নির্বাচন কমিশনের কোপে পড়লেন দুই নেতা–নেত্রী। ২৪ ঘণ্টার জন্য তাঁরা প্রচার চালাতে পারবেন না। রবিবার সন্ধে ৭টা থেকে সোমবার সন্ধে ৭টা পর্যন্ত জারি থাকবে নিষেধাজ্ঞা। 
এই দুই রাজনীতিকের মন্তব্য ঘিরে বিতর্ক তৈরি হয়। শীতলকুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে নিহত হন ৫ জন। সেই নিয়ে সায়ন্তন বলেন, ‘‌আমি সায়ন্তন বসু বলছি, বেশি খেলতে যাবেন না। আমরা শীতলকুচিতে খেলা খেলে দিয়েছি। প্রথমে ১৮ বছর বয়সি আনন্দ বর্মণকে খুন করা হয়েছিল। যে প্রথমবার ভোটার, তাঁকে সকালে খুন করা হল। আমাদের শক্তি প্রমুখের ভাই তিনি। আমরা বেশিক্ষণের জন্য কারও হিসেব বাকি রাখি না। চার জনকে স্বর্গে পাঠানো হয়ে গিয়েছে। শোলে সিনেমায় একটি সংলাপ আছে, তুম আগর এক মারোগে তো হম চার মারেঙ্গে।’‌
গত বৃহস্পতিবার তাঁকে নোটিস পাঠায় কমিশন। ২৪ ঘন্টার মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়। সায়ন্তনের জবাবে সন্তুষ্ট হতে পারেনি নির্বাচন কমিশন। এর পরেই তাঁর প্রচারের উপর ২৪ ঘণ্টার নিষেধাজ্ঞা জারি করা হল।
সুজাতা আরামবাগের তৃণমূল প্রার্থী। দ্বিতীয় দফায় তাঁর ভোট মিটে যায়। তার পর থেকেই তিনি প্রচারে নামেন অন্য প্রার্থীদের হয়ে। সেখানেই তফশিলি জাতি, উপজাতিদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন। বিরোধী দলগুলো কমিশনের হস্তক্ষেপ চায়। তার পরেই সুজাতাকেও নোটিস পাঠায় কমিশন। এবার জারি হল নিষেধাজ্ঞা। 

জনপ্রিয়

Back To Top