আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ রাজ্যের মন্ত্রিসভা থেকে ‌রাজীব ব্যানার্জি পদত্যাগ করতেই সরব হলেন শ্রীরামপুরের তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ ব্যানার্জি। পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে বলেন, দল ছেড়ে অন্য দলে রাজীব যেতেই পারেন। কিন্তু উনি যেন ডোমজুড় থেকেই দাঁড়ান। বুঝিয়ে দেব।’‌ হুগলির ডানকুনি এদিন একটি কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিলেন কল্যাণ। সেখানেই সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বলেন, ‘‌মা, তোর কত রঙ্গ দেখব, তুই বল!‌ যাঁরা চলে যেতে চাইছেন, চলে যান না এখনই। দেরি করছেন কেন!‌ অমিত শাহের সভার জন্য অপেক্ষা করছেন নাকি?‌ বড় মঞ্চ দরকার?‌ সবাই মমতা ব্যানার্জির জন্যেই জিতেছেন। আমিও তাই।’‌ 
রাজীবের ইস্তফার পর বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়াকেও দল থেকে বহিষ্কার করেছে তৃণমূল। সব মিলিয়ে বেশ অস্বস্তিতে শাসক শিবির। এই পরিস্থিতিতে তৃণমূলকে বিঁধতে ছাড়লেন না অধীররঞ্জন চৌধুরি। শুক্রবার ফরাক্কায় জনসভা শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে অধীরবাবু বলেন, ‘‌ভেঙে খান খান তৃণমূল। তাই রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় দল ছেড়ে পালাচ্ছেন। তবে আমার বক্তব্য, দিদির অত্যাচারে যাঁরা তৃণমূল ছেড়ে পালাচ্ছেন বা পালাবেন বলে ঠিক করেছেন, তাঁরা ভুল জায়গায় পা দেবেন না। কারণ দিদি আর মোদির মধ্যে কোনও ফারাক নেই। দুটোই সার্কাস দলের নাম। একটা দলের নাম দিদি, আর অন্য দলের নাম মোদি সার্কাস।’‌ 
বৃহস্পতিবারই চন্দননগরের সভা থেকে রাজীব ব্যানার্জিকে বিজেপিতে স্বাগত জানিয়েছিলেন শুভেন্দু। তার পর এদিন এই ঘটনা ঘটল। এদিন আবার খোঁচা দিয়ে শুভেন্দু বলেন, ‘‌ভোটার পালিয়ে গিয়েছে। প্রতিদিন মন্ত্রীরা পদত্যাগ করছে। টিভি খুললেই পদত্যাগ। কে কর্মচারী হয়ে থাকতে চায়? রাজনৈতিক সহকর্মীর মর্যাদা চাই। রাজীব ব্যানার্জি কোন দলে যাবেন, সেটা তাঁর মুখ থেকেই শোনাই ভাল।’‌

জনপ্রিয়

Back To Top