চন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়,মন্তেশ্বর: শিবরাত্রির মেলা উপলক্ষে রমরমিয়ে চলছিল জুয়ার ঠেক। মন্তেশ্বরের মামুদপুর ২ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের মথুরাপুর গ্রামে। খবর পেয়ে মন্তেশ্বরের ওসি সৈকত মণ্ডলের নেতৃত্বে বুধবার রাতে হানা দেয় পুলিশ। পুলিশ দেখে মারমুখী হয়ে ওঠে জুয়াড়ির দল ও তাদের সাঙ্গোপাঙ্গরা। শুরু হয় পুলিশের ওপর হামলা। ভাঙচুর করা হয় পুলিশের গাড়ি। পুলিশ সংযম দেখানোয় জুয়াড়িবাহিনী দ্বিগুণ উৎসাহে পুলিশের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। এই ঘটনায় ৭ জন পুলিশকর্মী কমবেশি জখম হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে প্রশান্ত প্রামাণিক ও ইদ্রিশ শেখ নামে পুলিশের দুই সাব–ইনস্পেক্টর এবং শেখ মোস্তাফা নামে এক সিভিক ভলান্টিয়ারের আঘাত গুরুতর হওয়ায় ওই তিনজনকে বর্ধমানের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 
তাঁদের মাথায়, ‌ঘাড়ে, বুকে, পেটে আঘাত লেগেছে। তাঁদের চিকিৎসার খোঁজখবর নিতে যান পূর্ব বর্ধমানের পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখার্জি। তবে প্রশান্ত প্রামাণিক নামে ওই সাব–ইনস্পেক্টরের অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে বৃহস্পতিবার সকালে কলকাতায় স্থানান্তরিত করা হয়েছে। জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ধ্রুব দাস বলেন, ‘মথুরাপুর গ্রামে জুয়ার ঠেক ভাঙতে গিয়ে পুলিশের ওপর আক্রমণের ঘটনায় মোট ১১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশ গোটা পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে। ওখানে কোনওভাবেই জুয়ার ঠেক চালাতে দেওয়া যাবে না।’ ধৃতদের মধ্যে ৫ জনকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জুয়ার পুরো গ্যাংটিকে পাকড়াও করতে চায় পুলিশ। পুলিশি অভিযানের প্রশংসা করে বাসিন্দার বক্তব্য, প্রত্যেক বছরই শিবরাত্রির মেলায় জুয়ার আসর বসে। মহিলারা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন।

হামলার ধৃতরা। ছবি:‌ প্রতিবেদক‌

জনপ্রিয়

Back To Top