‌Temporary Staff on Strike: একাধিক দাবিতে অস্থায়ী পরিবহন কর্মীরা হঠাৎ কর্মবিরতিতে, ভোগান্তিতে যাত্রীরা 

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মাসে ন্যূনতম ২৬ দিন কাজ, সবেতন ছুটি সহ একাধিক দাবি নিয়ে শুক্রবার সকাল থেকে কর্মবিরতি শুরু করলেন মুর্শিদাবাদের দক্ষিণবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থার বহরমপুর ডিপোতে কর্মরত অস্থায়ী কর্মীরা।

কর্মবিরতির জেরে শুক্রবার সকাল থেকে বহরমপুর শহর থেকে জেলার কোনও প্রান্তে বেশিরভাগ সরকারি বাস চলেনি। হঠাৎ করে শুরু হওয়া এই কর্মবিরতির ফলে প্রচণ্ড ভোগান্তির মধ্যে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। 
প্রসঙ্গত চলতি মাসের ১৯ তারিখে প্রথম দিঘাতে কর্মবিরতি শুরু করেছিলেন সরকারি পরিবহন সংস্থার অস্থায়ী কর্মীরা। তারপর রাজ্যের বিভিন্ন জেলাতে তারা এই দাবি নিয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি চালাচ্ছেন। শুক্রবার এই কর্মসূচি শুরু হল বহরমপুর শহরে। 
বহরমপুর ডিপোতে কর্মরত অস্থায়ী কর্মচারীরা জানান, এখানে প্রায় ৫০ জন অস্থায়ী বাস চালক এবং খালাসি রয়েছেন। তাঁদের প্রতি মাসে ২৬ দিন কাজ পাওয়ার কথা থাকলেও বর্তমানে ১০–১২ দিনের বেশি কেউ কাজ পাচ্ছেন না। সংসার চালাতে না পেরে তাঁরা বাধ্য হয়ে আন্দোলনের পথে যেতে বাধ্য হয়েছেন। এক অস্থায়ী কর্মী বলেন, ‘‌আমাদের প্রত্যেক মাসে দৈনিক ৫১৯  টাকা চুক্তিতে মোট ২৬ দিন কাজ পাওয়ার কথা। কিন্তু বর্তমান ম্যানেজমেন্ট আমাদের কাউকেই ১০–১২ দিনের বেশি কাজ দিচ্ছে না। তার ফলে যে বেতন আমরা হাতে পাচ্ছি তা দিয়ে আমাদের সংসার চলছে না। সমকাজে সমবেতন, স্থায়ীকরণ সহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে একাধিকবার ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে দেখা করেছি। কিন্তু আমাদের দাবিতে তাঁরা কর্ণপাত করেনি। তাই আমরা আন্দোলনের পথে যেতে বাধ্য হলাম।’‌ আন্দোলনরত কর্মীদের দাবি, ২০১৩–২০২২ পর্যন্ত যে সমস্ত চুক্তিভিত্তিক কর্মী পরিবহন সংস্থাতে নিযুক্ত হয়েছেন, তাঁদের সকলকে স্থায়ী করতে হবে। প্রত্যেক অস্থায়ী কর্মীকে ন্যূনতম ২৬ দিন কাজ দিতে হবে এবং কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে সবেতন ছুটি এবং সকল কর্মীদের বছরে একবার বেতন বৃদ্ধি করতে হবে। এই সমস্ত দাবি না মানা হলে অস্থায়ী কর্মীরা অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটে যেতে বাধ্য হবেন বলে হুমকিও দিয়েছেন। তৃণমূল কংগ্রেসের আইএনটিটিইউসি বহরমপুর–মুর্শিদাবাদ সাংগঠনিক জেলা সভাপতি পার্থপ্রতিম সরকার বলেন, ‘‌রাজ্য সরকার সবসময়ই অস্থায়ী কর্মীদের দাবিদাওয়ার প্রতি সহানুভূতিশীল। তবে ওই অস্থায়ী কর্মীদের কেউ আমার সঙ্গে তাঁদের সমস্যা নিয়ে দেখা করেননি। কর্মক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের অসুবিধা করে বিক্ষোভের বিরোধী আমরা। ওই কর্মীরা ঠিক জায়গায় আবেদন করলে অবশ্যই তাঁদের সমস্যার সমাধান হবে।’‌

 

আরও পড়ুন:‌ বেলঘরিয়া এক্সপ্রেসওয়েতে উদ্ধার প্রায় ১১ কেজি সোনা!‌ ধৃত চার পাচারকারী

আকর্ষণীয় খবর