‌আজকালের প্রতিবেদন: আন্দোলনকারী পার্শ্বশিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চান শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি। তার আগে তিনি চান ধর্না এবং অনশন প্রত্যাহার করে নিন পার্শ্বশিক্ষকেরা। 
শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চেয়ে পার্শ্বশিক্ষক ঐক্য মঞ্চের তরফে সদস্যরা শুক্রবার চিঠি দিয়েছেন। শনিবার মধ্যশিক্ষা পর্ষদের এক অনুষ্ঠানে এ নিয়ে প্রশ্ন করলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘‌ওঁরা কথা বলতে চাইলে অবশ্যই বলব। আলোচনা তো হবেই। কিন্তু যার কাছে দাবি জানাব তার বিরুদ্ধেই রাস্তায় বসে থাকব, এটা হয় না। এটা সুস্থ সংস্কৃতি নয়। ওঁদের রাস্তায় বসে থাকাটা আমি মনের দিক থেকে মেনে নিতে পারছি না। ওঁরা ধর্না এবং অনশন প্রত্যাহার করুন। ওঁদের কষ্ট করতে হবে না। স্কুলে ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনাও যেন বন্ধ না হয়।’‌ তবে শুধু ঐক্য মঞ্চের শিক্ষকদের সঙ্গে নয়, পার্শ্বশিক্ষকদের অন্য যে সংগঠন আছে তাদের সদস্যদের সঙ্গেও কথা বলতে চান শিক্ষামন্ত্রী। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘‌অন্য সংগঠনগুলি থেকে দু–একজন প্রতিনিধিকে একসঙ্গে করে সমস্যা শোনা এবং তা সমাধানের চেষ্টা করার কথা ভাবছি।’‌ মঙ্গলবার দপ্তরে গিয়ে ঐক্য মঞ্চের পাঠানো চিঠি দেখবেন। এবং কবে আলোচনায় বসা যায় তা স্থির করবেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। আন্দোলনকারীদের তরফে ভগীরথ ঘোষ বলেন, ‘আলোচনা ইতিবাচক না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।’‌ 
১১ নভেম্বর থেকে নির্দিষ্ট বেতন কাঠামোর দাবিতে আন্দোলন এবং ১৫ নভেম্বর থেকে অনশন শুরু করেছেন ঐক্য মঞ্চের সদস্যদের একাংশ। ‌স্কুল বয়কটের যে ডাক দেওয়া হয়েছিল, পাঁচ দিনের জন্য তা প্রত্যাহার করা হয়েছে। ছাত্রছাত্রীদের স্বার্থেই এই সিদ্ধান্ত তাঁরা নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা। শিক্ষামন্ত্রী এ নিয়ে বলেন, ‘‌এতদিন তাঁরা কেন স্কুল গেলেন না তার কৈফিয়ত তাঁদের দিতে হবে। ছাত্রছাত্রীদের কথা আগে ভাবা উচিত ছিল। অনেক অভিভাবক আমাকে চিঠি লিখে এঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে বলেছেন। এবার অভিভাবকেরা রাস্তায় নামলে কী হবে সেটা কি ভেবে দেখেছেন এঁরা?‌’‌ তাঁদের সরকার পার্শ্বশিক্ষকদের ভাতা ৫০ শতাংশ বাড়িয়েছে। সরকার যত সহানুভূতিশীল মনোভাব নিচ্ছে এবং সুবিচার করছে ততই এই ধরনের আন্দোলন হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন শিক্ষামন্ত্রী। বলেন, ‘‌এই ধরনের প্রকল্পে যাঁরা কাজ পেয়েছেন তাঁদের নির্দিষ্ট কোনও বেতন কাঠামো, গ্রেড থাকে না।’‌ এই ধরনের প্রকল্পে কতজন শিক্ষক, কর্মী কাজ করছেন তার তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সংখ্যাটা ৩ লক্ষের মতো বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top