গৌতম মণ্ডল, সুন্দরবন: বাল্য বিবাহ, নারী পাচার ও শিশুদের ওপর যৌন নির্যাতন বন্ধ করতে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা পুলিস ‘‌স্বয়ংসিদ্ধা’‌ প্রকল্প শুরু করেছিল। যে প্রকল্প প্রচার করে স্কুলস্তর পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছিল জেলা পুলিস। জেলা পুলিস বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে একাধিক শিবির করে। স্কুলে স্কুলে গড়ে তোলা হয়েছে ‘‌স্বয়ংসিদ্ধা’‌ গ্রুপ। পাশাপাশি প্রতিটি স্কুলে একটি করে লেটারবক্স রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। যেখানে ছাত্রীরা কোনও ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার মুখোমুখি হলে সরাসরি অভিযোগ জমা দিতে পারত। লাগাতার সেই প্রচারের সুফল মিলতে শুরু করেছে বলে জেলা পুলিসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। গত ৬ মাসে জেলার বিভিন্ন ব্লকের ২৪টি কমবয়সি বিয়ে আটাকানো সম্ভব হয়েছে এই গ্রুপের মাধ্যমে। এই ঘটনা খুবই ইতিবাচক বলে মনে করছেন জেলা পুলিসের আধিকারিক, ইউনিসেফ ও শিশু সুরক্ষা বাহিনী। শুক্রবার ডায়মন্ড হারবারের রবীন্দ্রভবনে জেলার বাছাই করা কয়েকটি স্কুলে স্বয়ংসিদ্ধা গ্রুপে ছাত্রী, শিক্ষক–শিক্ষিকা, জেলা পুলিসের আধিকারিক, সিআইডি ও আইনি পরামর্শদাতাদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হল স্বয়ংসিদ্ধা সম্মেলন। সম্মেলনে একে অপরের সঙ্গে বিভিন্ন অভিজ্ঞতার কথা বিনিময় করল। ছিল নোবেলজয়ী কন্যা মালালা ইউসুফজাইয়ের কথা নিয়ে একটি চিত্রনাট্যও। সম্মেলনে উপস্থিত ডায়মন্ড হারবার জেলা পুলিসের অতিরিক্ত পুলিস সুপার চন্দ্রশেখর বর্ধন বলেন, ‘এই প্রকল্প থেকে অনেক নাবালিকা বিয়ে ও পাচার আটকানো সম্ভব হয়েছে। পাচার হয়ে ফিরে আসার পরও এই জেলার ২০ জনের বেশি মহিলাকে স্বনির্ভর করতে নানান সামাজিক প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে।

স্বয়ংসিদ্ধা সম্মেলনে নৃত্যনাট্য। ছবি:‌ প্রতিবেদক

জনপ্রিয়

Back To Top