আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মুখ্যমন্ত্রী যে নন্দীগ্রামে দাঁড়াবেন, এক প্রকার নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে। শিবরাত্রির দিন মনোনয়ন জমা দিতে যাওয়ার কথা তাঁর। আর শুভেন্দু?‌ তিনি কি কথা রাখবেন?‌ মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধেই কি লড়বেন তিনি?‌ সেই নিয়ে কিন্তু এখনও জল্পনা রয়েই গিয়েছে। তবে তৃণমূল থেকে বিজেপি–তে যোগ দেওয়া রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি, শুভেন্দু নিজে নন্দীগ্রামে দাঁড়াতে চেয়েছেন।
এদিন দিল্লিতে প্রথমে কেন্দ্রীয় নেতা শিব প্রকাশের বাড়িতে বৈঠক করেন রাজ্য বিজেপি নেতারা। পরে বিজেপি–র সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার বাড়িতে বৈঠক হয়। সেখানে আসেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও। রাজ্যের প্রথম দুই দফার ৬০টি আসনের প্রার্থী তালিকা নিয়ে আলোচনা হয়। সেখানেই শুভেন্দু নিজের ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। 
প্রায় পাঁচ ঘণ্টা ধরে চলে বৈঠক। বৈঠকে ছিলেন বিজেপি–র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, কেন্দ্রীয় নেতা শিবপ্রকাশ, কৈলাস বিজয়বর্গীয়, অরবিন্দ মেনন, মুকুল রায়। সঙ্গে ছিলেন রাজ্যের সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) অমিতাভ চক্রবর্তী, রাহুল সিনহা, শুভেন্দু অধিকারী এবং রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্য থেকে হওয়া দুই মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় এবং দেবশ্রী চৌধুরিও হাজির ছিলে।
বৈঠক সেরে রাজীব দাবি করেন, শুভেন্দু নন্দীগ্রামে প্রার্থী হতে উৎসাবী। তবে এও জানান, নন্দীগ্রামেই শুভেন্দু দাঁড়াবেন কিনা, সেই নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে কেন্দ্রীয় কমিটি। শুভেন্দু নিজে অবশ্য এই নিয়ে মুখ খোলেননি।
মুখ্যমন্ত্রী যেদিন নন্দীগ্রামে দাঁড়াবেন বলে জানিয়েছিলেন, সেদিনই তাঁকে আধ লাখ ভোটে হারানোর হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন শুভেন্দু। বলেছিলেন, ‘‌নিশ্চিত থাকবেন, মমতা ব্যানার্জিকে হারাব আমি। দল প্রার্থী করলে সরাসরি হারাব। অন্য কাউকে প্রার্থী করলেও হারাব। পদ্ম ফোটাব। দায়িত্বটা আমার।’‌ এবার দেখার, সেই দায়িত্ব পালনের সুযোগ শুভেন্দু আদৌ পান কিনা। 

জনপ্রিয়

Back To Top