গৌতম মণ্ডল, ডায়মন্ড হারবার: ভিন ধর্মের যুবকের সঙ্গে প্রেম। পরে সেই সম্পর্ক ভেঙে পরিবারের পছন্দের পাত্রের সঙ্গে বিয়ে করে তরুণী। প্রাক্তন প্রেমিক বন্দুক উঁচিয়ে হাজির হয় বিয়ের আসরে। তরুণীকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। রীতিমতো হুমকি দিতে থাকে প্রেমিক ও তার সঙ্গীরা। রাতভর বাড়ির বাইরে চক্কর দেয় বাইক বাহিনী। আতঙ্কিত হয়ে নববিবাহিত দম্পতি ডায়মন্ড হারবারের কালীনগরে এক আত্মীয়ের বাড়িতে পালিয়ে আসে। শুক্রবার বিকেলে সেই বাড়ি থেকে গলায় ওড়নার ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার হয় তরুণী প্রিয়া ছাঁটুই (‌১৮)–এর‌ দেহ। ডায়মন্ড হারবার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকেরা প্রিয়াকে মৃত ঘোষণা করেন। অভিযুক্ত প্রেমিক যুবক ও তার এক বন্ধুর বিরুদ্ধে ডায়মন্ড হারবার থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে পরিবার।
এ বছরই উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছে রায়দিঘির গিলারছাঁটের বাসিন্দা প্রিয়া।

গত বছর একটি অনুষ্ঠানে রাজু দাস নাম ভাঁড়িয়ে প্রিয়ার সঙ্গে আলাপ জমায় ফইজুল্লা। কয়েক দিন মেলামেশার পর তরুণী জানতে পারে, রাজু আদতে ফইজুল্লা। সম্পর্ক রাখতে রাজি হয়নি প্রিয়া। পরিবারের লোকজন জয়নগরের দক্ষিণ বারাসত এলাকার সেনাকর্মী সোমনাথ প্রামাণিকের সঙ্গে বিয়ে ঠিক করেন। গত মঙ্গলবার ছিল বিয়ের দিন। বিয়ে চলার মুহূর্তে এক বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে ফইজুল্লা হাজির হয় সেখানে। অভিযোগ, একটি বন্দুক নিয়ে সোজা পাত্রের মাথায় ঠেকিয়ে হুমকি দিতে থাকে। প্রিয়াকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। অভিযোগ, স্থানীয় থানায় ফোন করা হলেও পুলিশ ফোন ধরেনি। আসেওনি। তবে পুলিশ এই অভিযোগ মানতে চায়নি। প্রিয়ার মৃত্যুর পর থেকে আরও আতঙ্কে রয়েছেন তার স্বামী ও বাপেরবাড়ির লোকজন।‌‌‌ তাঁরা এদিন অভিযুক্ত যুবকের কড়া শাস্তির দাবি জানিয়েছেন পুলিশের কাছে।

 

 

 

 

মৃত তরুণী প্রিয়া ছাঁটুই। শোকার্ত মা। ছবি: প্রতিবেদক

জনপ্রিয়

Back To Top