তুফান মণ্ডল,খানাকুল: দুর্ঘটনায় মৃত ৪ তৃণমূল নেতা–কর্মীর পরিবারের হাতে সাহায্যের চেক তুলে দিলেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। পাশাপাশি তিনি দামোদর সেচ প্রকল্পের সূচনা করেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে ঝটিকা সফরে খানাকুল আসেন তিনি। খানাকুল–‌১ নম্বর ব্লকে দুর্ঘটনায় মৃত দীপঙ্কর বরের স্ত্রী ঝুমা বর, প্রসেনজিৎ দিগেরের স্ত্রী লতিকা দিগ, দিলীপ সামন্তের স্ত্রী জ্যোৎস্না সামন্ত ও রাজকুমার পণ্ডিতের স্ত্রী টগরী সামন্তর হাতে দু’‌লক্ষ করে টাকার চেক তুলে দেন। 
উল্লেখ্য, ৯ জানুয়ারি রাতে খানাকুলের কিশোরপুর–১ নম্বর অঞ্চলের ৬ নেতা–কর্মী দিঘা যাচ্ছিলেন। ভোরের দিকে তমলুকের রামতারক এলাকায় তাঁদের মারুতির সঙ্গে লরির সঙ্ঘর্ষ হয়। ওই ঘটনায় ৪ তৃণমূল নেতা–কর্মীর মৃত্যু হয়। মৃত নেতা–‌কর্মীর পরিবারের সদস্যরা মন্ত্রীর কাছে চাকরির জন্য অনুরোধ করেন। মন্ত্রী তাঁদের আশ্বস্ত করে মোবাইল নম্বর নিয়ে পরে যোগাযোগ করবেন বলে জানান। 
অন্যদিকে এদিনই খানাকুল–‌১ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সভাগৃহে শুভেন্দু এক প্রশাসনিক বৈঠকে অংশ নেন। ছিলেন হুগলি জেলাশাসক ওয়াই রত্নাকর রাও, জেলা সভাধিপতি মেহেবুব রহমান, বিধায়ক মানস মজুমদার–সহ অন্যরা। বৈঠক শেষে মন্ত্রী বলেন, ‘‌হাওড়া গ্রামীণ এলাকা অর্থাৎ উদয়নারায়ণপুর, আমতা এবং হুগলির আরামবাগ মহকুমায় দামোদর সেচ প্রকল্পের কাজ ৭ ফেব্রুয়ারি শুরু হচ্ছে। এরজন্য ওয়ার্ল্ড ব্যাঙ্ক থেকে ৩ হাজার কোটি টাকার বেশি অনুমোদন পাওয়া গেছে। প্রথম পর্যায়ে হুগলি জেলায় কাজ হবে। এর জন্য এই আর্থিক বর্ষে বরাদ্দ হয়েছে ৬৫০ কোটি টাকা। ওই টাকা দিয়ে মুণ্ডেশ্বরী ও রনের খালের কাজ শুরু হবে। এই কাজের জন্য এই মরশুমে বোরো চাষের কিছুটা অসুবিধে হবে। তবে জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে এর জন্য চাষিদের সবরকম সহায়তা করা হবে। জলের জন্য বিকল্প সেচের ব্যবস্থা করা হবে। বিকল পাম্পগুলি দ্রুত সচল করে তোলা হবে। চাষিদের যাতে কোনওরকম অসুবিধে না হয় তা দেখা হবে। উল্লেখ্য, এই প্রকল্পের কাজ শেষ হলে এই এলাকায় সেচের আর কোনও সমস্যা থাকবে না। 

‌দুর্ঘটনায় মৃতদের পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর। ছবি:‌ প্রতিবেদক

জনপ্রিয়

Back To Top