আজকালের প্রতিবেদন: লকডাউনের সুযোগ নিয়ে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য মজুতের অভিযোগ উঠল এক শ্রেণির ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। সেই সঙ্গে রয়েছে চড়া দাম নেওয়ার অভিযোগ। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের এই কালোবাজারি রুখতে কঠোর ভূমিকা নিচ্ছে প্রশাসন। মঙ্গলবার পণ্য মজুতের ঘটনায় বর্ধমানের মন্তেশ্বর ও মেমারিতে তিন ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। মন্তেশ্বরে আটক ২ ব্যবসায়ী পরেশ কর ও সারাফত আলি কুসুমগ্রামের বাসিন্দা। সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত এলাকার বিভিন্ন বাজারে অভিযান চালায় পুলিশ। ১০০ বস্তা চাল ও ২০ বস্তা রেশনের আটা উদ্ধার হয়েছে। সোমবার অতিরিক্ত দামে মাস্ক বিক্রি করার জন্য কুসুমগ্রাম মণ্ডলপাড়ার চা ব্যবসায়ী আফসার শেখকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।  বেআইনিভাবে চাল মজুত করার অভিযোগে মেমারিতে এক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ। তঁার গোডাউন থেকে উদ্ধার করা হল প্রায় ছশো বস্তা চাল। কাটোয়া ও কালনা, দুই মহকুমার শহর ও শহরতলির ওষুধের দোকান, মুদিখানা–সহ অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিক্রির দোকানগুলিতেও এদিন হানা দেয় পুলিশ। এদিন, সকালে পুরুলিয়ার সবজি বাজারগুলিতে চড়া দামে সবজি বিক্রির খবর পেয়ে হানা দিলেন ইডি–র পুলিশ কর্মীরা। পুরুলিয়া শহরের বড় হাটে এদিন সকালে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছিল সমস্ত সবজি আলু, পেঁয়াজ। সবজি বিক্রেতারা জানান, এদিন তঁাদের বাজার থেকে বেশি দামে কিনতে হয়েছে আলু। এমনকী পেঁয়াজের দাম বেড়ে গিয়েছে পর্যাপ্ত লরি না আসার কারণে। এদিকে, বারুইপুরের বিভিন্ন বাজারে ঘুরল বারুইপুর জেলা পুলিশ। তঁারা এদিন একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে সকাল ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বাজার খোলার নির্দেশ দেন ব্যবসায়ীদের। আর ওই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই জনসাধারণকে বাজার থেকে কেনা–কাটা করতে বলা হয়েছে।‌
 

জনপ্রিয়

Back To Top