নিরুপম সাহা, হাবড়া: বিরোধীদের একদিন স্বীকার করতেই হবে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মমতা ব্যানার্জির মূল্যায়ন ভুল হয়েছে। মমতাই ঠিক। একদিন বিরোধীদের মানতে হবে। রবিবার হাবড়ায় স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের কার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে এসে বিরোধীদের উদ্দেশে এ কথা বললেন মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। এদিন হাবড়ার দেশবন্ধু পার্কের মাঠে হাবড়া পুরসভার উদ্যোগে প্রায় আড়াই হাজার উপভোক্তার হাতে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের কার্ড তুলে দেওয়া হল। অনুষ্ঠানে ছিলেন হাবড়ার বিধায়ক তথা রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক এবং বারাসতের সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার। 
মন্ত্রী এদিনের অনুষ্ঠান থেকে জানিয়েছেন, এক সময় এই রাজ্যে গরিব মানুষ টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে না পেরে হাসপাতালে মারা যেতেন। কিন্তু বর্তমানে মমতা ব্যানার্জির সরকার সাধারণ মানুষের জন্য স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের কার্ড করে দিয়েছে। বাড়ির মায়েদের প্রতি সম্মান জানিয়েই এই কার্ডটি তাঁদের নামেই করা হচ্ছে। বাড়ির যে সদস্যার নামে এই কার্ডটি থাকবে পরিষেবা পাবেন তাঁর স্বামী, অবিবাহিত সন্তানেরা, শ্বশুর–শাশুড়ি, অবিবাহিত এবং ডিভোর্সি ননদও। এছাড়াও তঁার নিজের বাবা–মা। এই কার্ডের মাধ্যমে প্রতিবছর পরিবারের  সদস্য–সদস্যাদের জন্য পাঁচ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনামূল্যে চিকিৎসা সুবিধা পাওয়া যাবে। সম্পূর্ণ খরচ বহন করবে রাজ্য সরকার। হাসপাতালে থাকাকালীন রোগীর সব প্রয়োজনীয় পরীক্ষা–‌নিরীক্ষা এবং সমস্ত ওষুধপথ্য বিনামূল্যে পাওয়া যাবে। এই পরিষেবা জেলার নথিভুক্ত সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল থেকে পাওয়া যাবে। এই প্রকল্পের সুবিধা সম্পূর্ণ পেপারলেস, ক্যাশলেস, এবং স্মার্টকার্ড ভিত্তিক। জ্যোতিপ্রিয় বলেন, ‘‌হাবড়ার চল্লিশ হাজার পরিবার স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের পরিষেবা পাবে।’‌ পাশাপাশি তিনি জনসাধারণের উদ্দেশে বলেন, ‘‌এই কার্ড ঘরে ঘরে পরিচয়পত্র হিসেবেই যেন থাকে। সকলেই সুস্থ থাকুন, ভাল থাকুন।’‌
 

জনপ্রিয়

Back To Top