দীপঙ্কর নন্দী
দেশের মধ্যে সবচেয়ে বড় ভাসমান সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র তৈরি হল এ রাজ্যে। মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘিতে ৫ মেগাওয়াট এই ভাসমান কেন্দ্রটি আজ, শুক্রবার থেকে চালু হচ্ছে। বৃহস্পতিবার নবান্ন সভাঘরে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বৈঠকের পর স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিকদের বলেন, ‘‌এটি ভারতের মধ্যে বৃহত্তম ভাসমান সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র। ২২ কোটি টাকা খরচ হয়েছে এই কেন্দ্র তৈরির জন্য। প্রায় ১ লক্ষ বাড়িতে বিদ্যুৎ দেওয়া যাবে।’‌ মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ও ছিলেন।
বৈঠকের শেষে বিদ্যুৎমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, দেড় বছর আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ১৩ মাসের মধ্যে আমরা কাজ শেষ করে ফেলেছি। শুক্রবার থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। বিশাল জায়গা নিয়ে এটি করা হয়েছে। ভাসমান সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র নতুন দিগন্ত খুলে দেবে। রক্ষণাবেক্ষণের জন্য লোকজন লাগবে। এলাকায় কিছু কর্মসংস্থান হবে।’‌ বুধবার মুখ্যমন্ত্রী দিঘায় ২০০ মেগাওয়াটের সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্প হবে বলে ঘোষণা করেন। জার্মানির কেএসডব্লিউ নামে একটি সংস্থা ১ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে। বাকি ২০০ কোটি বিনিয়োগ করবে রাজ্য। কয়েক হাজার কর্মসংস্থান হবে এই কেন্দ্রকে ঘিরে।
অন্যদিকে, মন্ত্রিসভার বৈঠকে গঙ্গার পাড়ে দক্ষিণ ২৪ পরগনার মহেশতলায় যে নতুন টাউনশিপ তৈরি হচ্ছে তা নিয়েও বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। এখানে ফিল্ম সিটি হবে। উচ্চমানের শিক্ষাকেন্দ্র ও অ্যাপোলো হাসপাতাল–‌সহ আরও কিছু প্রকল্প হচ্ছে। কাজ শেষ করার জন্য সময় আরও বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে অ্যাপোলো হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে দ্রুত কাজ করতে বলা হয়েছে। স্বরাষ্ট্রসচিব মহেশতলার বিষয়টিও সাংবাদিকদের বলেন।
সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, বাংলায় আরও উন্নয়নের জন্য টাকা খরচ করা হবে। ২০১১–‌তে ক্ষমতায় আসার পর বাংলায় বহু প্রকল্প চালু করা হয়েছে। বাংলাকে নিয়ে গর্ব বোধ করি। বিরোধীরা উন্নয়ন দেখতে পায় না। ওদের একটাই কাজ, সরকারের বিরুদ্ধাচরণ করা। কোভিড পরিস্থিতির মধ্যেও বাংলার উন্নয়ন থেমে থাকছে না। বাংলায় আরও বিদেশি বিনিয়োগ আসবে। ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top