Son Killed Mother: ‌মায়ের মৃতদেহ মাটিতে পুঁতে আড়াই বছর ধরে নিয়মিত ধূপ–ধুনো, গুণধর ছেলের কীর্তি ফাঁস 

‌আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ গুণধর ছেলের কাণ্ড শুনলে চমকে উঠতে হবে। নিজের মা’‌কে খুন করে দেহ ঘরের মেঝেতে পুঁতে রাখার অভিযোগই শুধু নয়। গত আড়াই বছর ধরে মাটির উপর থেকে ওই জায়গায় নিয়মিত ধূপ–ধুনো দেখাত সে। বর্ধমান থানার হটুদেওয়ান এলাকায় এই ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পড়ে গেছে। 
মৃত মহিলার নাম সুকরানা বিবি (৫৮)। তাঁর ছোট ছেলে সহিদুল শেখ ওরফে নয়ন বছর দুয়েক আগে সুকরানা বিবির মাথায় মুগুর মেরে এবং শ্বাসরোধ করে তাঁকে খুন করে বলে অভিযোগ। তারপর প্রমাণ লোপাট করতে দেহ ঘরের নীচে পুঁতে দেয়। ইতিমধ্যে ঘটনার তদন্তে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নয়নকে আটক করা হয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্ধমান থানার হটুদেওয়ান পীরতলা ক্যানেলপাড় এলাকার বাসিন্দা নয়ন। তার বেড়াতে যাওয়ার নেশা ছিল। কিন্তু সুকরানা বিবি ছেলের এই নেশা পছন্দ করতেন না। সেই রাগেই আড়াই বছর আগে নয়ন মা–কে খুন করে দেহ লোপাট করে দেয় বলে অভিযোগ। ২০১৯ সালের ১০ জানুয়ারি থেকে নিখোঁজ হয়ে যান সুকরানা বিবি। দিন দশেক পরেও মায়ের খোঁজ না পেয়ে ওই বছরের ২২ ফেব্রুয়ারি সুকরানার বড় ছেলে শেখ কিসমত আলি বর্ধমান থানায় একটি নিখোঁজ ডায়রি করেন। যদিও সুকরানা বিবির হদিশ দিতে ব্যর্থ হয় পুলিশও। অবশেষে নয়নের স্ত্রী স্বামীর কার্যকলাপের কথা স্বীকার করে দেওয়ায় রহস্য ফাঁস হল।
পুলিশ জানিয়েছে, স্বামীর সঙ্গে বিবাদের জেরে নয়নের স্ত্রী বাপেরবাড়ি থাকেন। তাঁদের বিবাদ মেটাতে নয়নের দাদা কিসমত আলি হস্তক্ষেপ করেন। সোমবার তিনি নয়নের স্ত্রীকে বাড়িতে নিয়ে আসার চেষ্টা করেন। তখনই নয়নের স্ত্রী জানান, সুকরানা বিবিকে নয়ন খুন করে দেহ ঘরের মেঝেতে পুঁতে রেখেছে। যা শুনে স্তম্ভিত কিসমত আলি মঙ্গলবার সকালে ভাইকে এই বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। প্রতিবেশীদেরও ডাকা হয়। সকলের জেরার মুখে অবশেষে ভেঙে পড়ে মা–কে খুন করার কথা স্বীকার করে নয়ন। এরপর বর্ধমান থানায় খবর দেওয়া হয়। সুকরানা বিবির দেহের হদিশ পেতে বুধবার আদালতের নির্দেশ নিয়ে নয়নদের বাড়ি খোঁড়া হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।