আজকালের প্রতিবেদন: শুক্রবার ২৮টি জেলার মধ্যে ২৬টি জেলার সভাপতিদের নিয়ে বৈঠক করলেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব। উপস্থিত ছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র, প্রদীপ ভট্টাচার্য ও রাজ্যের পর্যবেক্ষক গৌরব গগৈ। নির্বাচনের পর এই প্রথম বিধানভবনে বৈঠক হল। ফল নিয়ে কাটাছেঁড়া হয়েছে। উত্তরবঙ্গের নেতাদের ভর্ৎসনা করেছেন প্রদেশ নেতৃত্ব। বলেছেন, ‘‌আপনারা বিজেপিকে কোনওভাবেই আটকাতে পারেননি।’‌ সাংগঠনিক দুর্বলতার জন্যই এই ফল হয়েছে বলে প্রদেশ নেতৃত্ব মনে করেন। দলের বৈঠকের পর সোমেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘‌অধিকাংশ জেলার সভাপতি সিপিএমের সঙ্গে আন্দোলনের পক্ষে মত দিয়েছেন। জোট হলে তাঁদের কোনও আপত্তি নেই।’‌ সোমেন বলেন, ‘‌সিপিএমের সঙ্গে জোট যদি করতেই হয়, তাহলে ভোটের মুখে নয়, অনেক আগে থেকে এই জোটের প্রক্রিয়া শুরু করতে হবে। বামেদের সঙ্গে যৌথ মঞ্চ করা যায় কিনা, তা নিয়েও আলোচনা হয়েছে। অনেকেই সমর্থন জানিয়েছেন। ভোটের মুখে জোট হলে মানুষ সুবিধাবাদী জোট বলে ধরে নেবে। আমরা এটা চাই না। অভিন্ন কর্মসূচি নেওয়া দরকার। তাহলে সেই জোট গ্রহণযোগ্য হবে।’ সোমেন বলেন, ‘‌বিজেপিকে হঠাবার ব্যাপারে মমতা ব্যানার্জির নীতি পরিষ্কার হওয়া দরকার। তবেই আমরা সমমনোভাবাপন্ন দলের সঙ্গে যেতে পারি।’‌ সকাল থেকে এদিন বিধানভবনে বৈঠক শুরু হয়। জেলা সভাপতিদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক চলে। সাংবাদিক বৈঠক করেও প্রদেশের নেতারা ফের বৈঠক শুরু করেন। কীভাবে সংগঠন আরও শক্তিশালী করা যায় তা নিয়েও এদিনের বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। জেলা সভাপতিদের কর্মসূচি নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কংগ্রেসকে আরও জনমুখী করে তোলার কথা বলা হয়েছে। ‌উত্তর দিনাজপুরের জেলা সভাপতি মোহিত সেনগুপ্ত বলেছেন, ‘‌লোকসভা নির্বাচনে সিপিএমের সঙ্গে জোট করলে ভাল হত।’‌ প্রদেশ নেতারা জেলা সভাপতিদের বলেছেন, ‘‌স্থানীয় ইস্যুতে বামেদের সঙ্গে আন্দোলন করতে হবে।’‌ ‌

জনপ্রিয়

Back To Top