‌আজকালের প্রতিবেদন: ত্রিপুরায় শুধু সিপিএম কর্মীদের ওপর হামলা হচ্ছে তা–‌ই নয়, কার্ল মার্কস ও লেনিন মূর্তি ভাঙা পড়েছে। এর প্রতিবাদে মঙ্গলবার বাংলা তোলপাড়। সিপিএম প্রতিবাদে সরব হয়েছে। তারা পাশে পেয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে। এখন সিপিএমের রাজ্য সম্মেলন চলছে। রাজ্য সম্মেলনের কর্মসূচি থামিয়ে দলের নেতা ও সম্মেলনের প্রতিনিধিরা বিশাল মিছিল করলেন। যোগ দেন হাজার হাজার কর্মী–‌সমর্থক। রাজ্য সম্মেলনের কেন্দ্র থেকে ধর্মতলায় লেনিন মূর্তি পর্যন্ত মিছিল যায়। মিছিলের পুরোভাগে ছিলেন দলের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি, প্রকাশ কারাত, বৃন্দা কারাত, বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্র প্রমুখ। 
এদিন সম্মেলনে ত্রিপুরার সমর্থনে একটি প্রস্তাবও নেয় রাজ্য দল। প্রস্তাবটি পেশ করেন রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। প্রস্তাবে ঘটনার নিন্দা করে বলা হয়েছে, এই আক্রমণ ফ্যাসিস্ট–‌সুলভ। রাজ্য দল ত্রিপুরার মানুষের পাশে আছে। অবিলম্বে আক্রমণ ও হামলা বন্ধ করার জন্য সম্মেলনে প্রস্তাব পাশ হয়েছে। 
এতে আরও বলা হয়েছে, ফল ঘোষণার পরই ত্রিপুরায় ব্যাপক হামলা হচ্ছে। জেলা, আঞ্চলিক স্তরের দলীয় অফিস দখল করা হচ্ছে। চলছে ব্যাপক ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা। ২০০–‌র বেশি পার্টি অফিস দখল করা হয়েছে। ১৫০০ বাম কর্মীর বাড়িতে লুঠ ও ভাঙচুর হয়েছে। পার্টি নেতা ও কর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছেন। সাধারণ মানুষও আক্রান্ত। মান্দাইয়ের মতো উপজাতি এলাকায় বাজার পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। 
ওই ধরনের নিন্দনীয় ঘটনা ঘটানোর পর আরএসএস সমর্থকরা রীতিমতো আনন্দিত। তাদের কর্মকাণ্ড দেখে এমনটাই মনে করেন সীতারাম ইয়েচুরি। লেনিন মূর্তি ভাঙাও যেন কোনও গৌরবের কাজ!‌ এমনকী রাজ্যপাল তথাগত রায়ও নিজের আনন্দ প্রকাশ না করে পারেননি বলে সীতারাম মনে করেন। টুইটারে এই ঘটনার উল্লেখ করা হয়। রি–‌টুইট করে তথাগত রায় বলেন, গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত এক সরকারের কাজ অন্য সরকার পাল্টাতে পারে। রাজ্যপালের মতো ব্যক্তিত্বের এই রি–‌টুইট দেখে সীতারাম বিস্মিত। তিনি বলেন, ‘‌সাংবিধানিক পদমর্যাদার কোনও ব্যক্তি যে এভাবে একপেশে হয়ে কাজ করতে পারেন বা কথা বলতে পারেন, তা ভাবা যায় না।’‌
বিকেল সাড়ে ৪টেয় প্রমোদ দাশগুপ্ত ভবন থেকে মিছিল বেরোয়। মিছিল শেষে নেতা ও সম্মেলনের প্রতিনিধিরা প্রমোদ দাশগুপ্ত ভবনে ফিরে গিয়ে আবার কর্মসূচি শুরু করে দেন। এদিকে এদিন অন্য বাম দলও কলকাতায় লেনিন মূর্তি ভাঙার প্রতিবাদে মিছিল, পথসভা করে। এসইউসি–‌র মিছিল যায় লেনিন মূর্তি পর্যন্ত। সিপিআইএমএল সদস্য– সমর্থকরা‌ও প্রতিবাদে পথে নামেন। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top