অনুপম বন্দ্যোপাধ্যায়, সাঁইথিয়া: প্রচারের ঝড়ো ইনিংস শুরু করে দিলেন বীরভূম লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী শতাব্দী রায়। বৃহস্পতিবার সকালে তারাপীঠ মন্দিরে পুজো দিয়ে এবং তারাপীঠ লাগোয়া ফুলিরডাঙা মাজারে চাদর চাপিয়ে নিজের এবারের নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন তৃণমূলের এই তারকাপ্রার্থী। আর শুক্রবার তিনি জেলার অন্যতম সতীপীঠ সাঁইথিয়ার নন্দিকেশ্বরী মন্দিরে পুজো দিয়ে দ্বিতীয় দিনের প্রচার শুরু করলেন।
রাঙামাটির বীরভূমের চড়া রোদের মধ্যেই তিনি সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত সাঁইথিয়া, সিউড়ি ও দুবরাজপুর এলাকা চষে বেড়ালেন। এদিন সকালে সাঁইথিয়ায় এসে নন্দিকেশ্বরী মন্দির ও পাশেই জগন্নাথ মন্দিরে পুজো দেন শতাব্দী। এরপর স্থানীয় তৃণমূল কার্যালয়ে বসে সাঁইথিয়ার দলীয় নেতৃত্ব, বিধায়ক, পুরপ্রধান ও কাউন্সিলরদের নিয়ে নির্বাচনী প্রচারের পরিকল্পনা নিয়ে তিনি আলোচনা করেন। এদিন সাঁইথিয়ার ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে তাঁর নির্বাচনী দেওয়াল লিখনে ব্যস্ত দলের কর্মীদের কাছ থেকে রং তুলি নিয়ে শতাব্দী নিজেও দেওয়াল লিখনে হাত লাগান।
সাঁইথিয়ার পর এদিন শতাব্দী আসেন সিউড়ি এবং দুবরাজপুর। সাঁইথিয়ার মতোই সিউড়ি এবং দুবরাজপুরেও দলীয় কার্যালয়ে বসে স্থানীয় পুরপ্রধান, সমস্ত কাউন্সিলর ও দলের নেতা–নেত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। এদিন ৩টি শহরেই শতাব্দীকে দেখতে রাস্তায় কৌতূহলী মানুষের ভিড় জমে যায়। তাঁদের উদ্দেশে হাসিমুখে হাত নাড়িয়ে সৌজন্য বিনিময় করেন তৃণমূলের সেলিব্রিটি প্রার্থী।
এই কেন্দ্রে টানা তৃতীয়বারের জন্য দলের প্রার্থী হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণার পর বৃহস্পতিবারই শিশুকন্যা সামিয়ানাকে নিয়ে জেলায় প্রথম পা রাখেন শতাব্দী। এরপর প্রথম দিন থেকেই শুরু করে দেন প্রচারের ঝোড়ো ইনিংস। নিজের জয় নিয়ে আত্মবিশ্বাসী শতাব্দী এদিন বলেন, এই কেন্দ্রে এবার তাঁর সঙ্গে যেটুকু লড়াই হবে, সেটা বিজেপি–‌র সঙ্গেই। তবে তাঁর জয়ের ব্যবধান এবার আরও বেশি হবে বলে তিনি নিশ্চিত। ‌

সাঁইথিয়ায় দেওয়াল লিখছেন তৃণমূল প্রার্থী শতাব্দী রায়। ছবি:‌ শান্তনু দাস

জনপ্রিয়

Back To Top