আজকালের প্রতিবেদন: প্রয়াত কমিউনিস্ট নেতা গুরুদাস দাশগুপ্তকে স্মরণ করল ‘‌উত্তরাধিকার’‌। শুধু রাজনৈতিক নয়, তাঁর সামাজিক, মানবিক উত্তরাধিকার জারি রাখতে চান যাঁরা, তাঁরা সমবেত হলেন এই সভায়। বুধবার সন্ধেয় গোর্কি সদনে এই স্মরণসভায় উপস্থিত ছিলেন প্রয়াত গুরুদাস দাশগুপ্তের স্ত্রী জয়শ্রী দাশগুপ্ত, কন্যা সোহিনী চক্রবর্তী ছাড়াও কথাসাহিত্যিক দেবেশ রায়, নাট্যকার রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত, অধ্যাপক শোভনলাল দত্তগুপ্তের মতো বিশিষ্টরাও। গানে–কবিতায়–কথায় তমোনাশ ভট্টাচার্য, অর্ক রায়, অদিতি রায়দের নিবেদনে উঠে এল গুরুদাস দাশগুপ্তের স্নেহ, ভালবাসা, মানবিকতা, ছাত্র আন্দোলন, শ্রমিক আন্দোলন ও আপাদমস্তক রাজনৈতিক জীবন— সবই। তাঁর স্মৃতিচারণে বন্ধু সাহিত্যিক দেবেশ রায় বলেন, তখন তো কমিউনিস্ট পার্টি করা সহজ কাজ ছিল না। তবু আমরা কমিউনিস্ট হয়েছিলাম। কেন?‌ আমরা বিশ্বাস করতাম, আমরা একটা উন্নত সভ্যতার প্রতিনিধি। এবং তা নিয়ে গর্ববোধও ছিল। যে সমাজের জলজ্যান্ত উদাহরণ ছিল সোভিয়েত। আজও বিশ্বাস এবং গর্ববোধ আছে। গুরুদাসের মতো আমরাও যেন কমিউনিস্ট হওয়ার গর্ব নিয়ে চলে যেতে পারি। রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত বললেন, মানুষের শরীর চলে যায়। রয়ে যায় তাঁর কাজ আর কথা। সেগুলো বাঁচিয়ে রাখতে পারলেই মানুষটা বেঁচে থাকে।‌

গুরুদাস দাশগুপ্তর স্মরণসভায় জয়শ্রী দাশগুপ্ত, দেবেশ রায়, রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত প্রমুখ। বৃহস্পতিবার। গোর্কিসদনে। ছবি:‌ বিজয় সেনগুপ্ত

জনপ্রিয়

Back To Top