মিল্টন সেন, হুগলি: ঘটনার ৭ দিন পর শুক্রবার সকালে থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করল পোলবার কামদেবপুরে পুলকার দুর্ঘটনায় অভিযুক্ত চালক শামিম আখতার। জানা গেছে, ১৪ ফেব্রুয়ারি ঘটনার দিন সকালে শেওড়াফুলির বাসিন্দা শামিমের পুলকারেই কাউন্সিলর সন্তোষ সিং (পাপ্পু)–এর ছেলে ঋষভ স্কুলে আসছিল। সকাল সওয়া ৬টা নাগাদ বাড়ি থেকে ঋষভকে তার পুলকারে তুলেছিল শামিম। জানা যায়, রাস্তায় চালক বদল হয় পুলকারের। ঋষভকে বাড়ি থেকে তুলে পুলকার মাঝরাস্তায় পবিত্রকে দিয়ে দেয় শামিম। সেই গাড়ি কামদেবপুরে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নয়নজুলিতে গিয়ে পড়ে পুলকার। ঘটনায় গুরুতর আহত হয় ৩ পড়ুয়া। ঋষভ সিং, দিব্যাংশ ভকতের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায়, তাদের গ্রিন করিডর করে কলকাতার পিজি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ। তার পর থেকেই পলাতক ছিল শামিম। তদন্তে জানা যায়, রোহিত কোলে নামে এক ব্যক্তির থেকে সে পুলকারটি কিনেছিল। আরও জানা যায়, তার গাড়ির ফিটনেস ফেল ছিল। একইসঙ্গে গাড়িতে থাকা গতি নিয়ন্ত্রণের তার বিচ্ছিন্ন করা ছিল। অভিযুক্ত শামিমের বিরুদ্ধে আইপিসি ২৭৯, ৩০৮, ৩৩৭ এবং ৩৩৮ ধারায় মামলা রুজু করে পোলবা থানার পুলিশ। এদিন তাকে চুঁচুড়া জেলা আদালতে তোলা হয়েছে।

 

সঙ্কট আরও বেড়েই চলেছে ঋষভের

আজকালের প্রতিবেদন: এসএসকেএমে চিকৎসাধীন পড়ুয়া ঋষভ সিংয়ের শারীরিক অবস্থা ক্রমশই অবনতি হচ্ছে। ফুসফুস থেকে সংক্রমণ গোটা শরীরে ছড়াচ্ছে। হার্ট, লিভার, কিডনিতে সংক্রমণ বাড়ছে। কিডনি ঠিকমতো কাজ না করায় ডায়ালিসিস চালিয়ে সচল রাখার চেষ্টা করছেন চিকিৎসকরা। ভেন্টিলেশনে ইকমো সাপোর্টে রাখা হয়েছে। পরিবর্তন করা হয়েছে অ্যান্টিবায়োটিক। সংক্রমণ কমাতে ৩৬ ইউনিট রক্ত, প্লাজমা দেওয়া হয়েছে। দেওয়া হচ্ছে ফ্রেশ হোলব্লাড। শুক্রবার মেডিক্যাল বোর্ড বৈঠকে বসে। ধীরে ধীরে মাল্টি অর্গান ফেলিওর উপসর্গের দিকে চলে যাওয়ায় চিকিৎসকরা উদ্বিগ্ন। হাসপাতালের সুপার ডাঃ রঘুনাথ মিশ্র জানান, রোগীকে সুস্থ করে তোলার জন্য যা যা দরকার তা সবই করা হচ্ছে। রোগীর পরিস্থিতি খুবই সঙ্কটজনক। চিকিৎসকরা আশাবাদী হয়তো কোনও পরির্তন হতে পারে। রোগীকে ফ্রেশ ব্লাড দেওয়া হচ্ছে কারণ নতুন করে নিজের রক্ত তৈরি করতে পারছে না। প্লেটলেট তৈরি হচ্ছে না। অন্যদিকে দিব্যাংশ ভকতের শারীরিক অবস্থা কিছুটা স্থিতিশীল। ধীরে ধীরে চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছে। এদিন মায়ের সঙ্গে কথা বলেছে। আপাতত ওর ভেন্টিলেশন বন্ধ। প্রয়োজন পড়লে অক্সিজেন দেওয়া হতে পারে। সেরে উঠতে এখনও একটু সময় লাগবে। ‌

ধৃত শামিম। ছবি:‌ পার্থ রাহা

জনপ্রিয়

Back To Top